Sylhet Report | সিলেট রিপোর্ট | ক্যামেরা হাতে আতাউর রহমান আতা’র ৫০ বছর
মঙ্গলবার, ০৫ জুন ২০১৮ ০২:০৬ ঘণ্টা

ক্যামেরা হাতে আতাউর রহমান আতা’র ৫০ বছর

Share Button

ক্যামেরা হাতে আতাউর রহমান আতা’র ৫০ বছর

মো. ফয়ছল আলম: 

তখন সারাদেশে এরশাদ বিরোধী আন্দোলন তুঙ্গে। সময়টা ১৯৮৬ সাল । মোবাইল ফোনও ছিলোনা। টেলিফোনও ছিলোনা । তাই রাজনৈতিক নেতারা আগেই ফটো সাংবাদিক বলে রাখতেন তাদের কর্মসূচির ছবি তোলার জন্য। তেমনিভাবে সিলেটের তখনকার ছাত্র আন্দোলনের পুরোধা ব্যক্তিত্ব মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ (বর্তমান আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক) সিলেটের একমাত্র ফটো সাংবাদিক আতাউর রহমান আতা ভাইকে তাদের কর্মসূচির খবর জানিয়ে রাখতেন। কোথায় মিছিল হবে, কোথায় সমাবেশ? সময় মতো পৌঁছে যেতেন আতা ভাই। ছবি তুলতেন। পরদিন সিলেট এবং ঢাকার দৈনিক গুলোতে ফলাও করে মিছিলের খবর ও ছবি প্রচার হতো। শত চেষ্টা করেও পুলিশ জানতে পারতো না এসব কর্মসূচির খবর। পুলিশের বিশেষ শাখার কর্মীরা হন্যে হয়ে খোঁজতেন নেতাদের।
একদিন সিলেটের বিশেষ শাখার পুলিশ সুপার জাহেদ আকবর ফটো সাংবাদিক আতা ভাইর শরণাপন্ন হলেন। বললেন ভাই, আমাদেরকে এ খবরগুলো আপনি দিতে হবে। আপনিতো জানেন আমাদের কাছে একটা ‘সোর্স মানি’ বরাদ্দ আছে, সেটি আপনাকে দিয়ে দেব। সময়টা ছিলো খারাপ। তাই ভেতরে ভেতরে তেলে বেগুনে জ্বললেও সবিনয়ে পুলিশ অফিসারের সেই লোভনীয় প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করলেন আতা ভাই। এভাবে ৪০ বছরের পেশাগত জীবনে বহু লোভনীয় অফার প্রত্যাখ্যান করে নিজের সততাকে আকড়ে ধরে চলেছেন সিলেটের ফটো সাংবাদিক আতাউর রহমান আতা।
সিলেটের প্রবীণ ফটো সাংবাদিক আতাউর রহমান আতার জন্ম সিলেট নগরীর মেন্দিভাগে নিজস্ব বাড়িতে। পিতা মরহুম ছৈয়দ আলী এবং মাতা মরহুমা হাজেরা খাতুনের গর্ভে জন্ম নেয়া তিন পুত্র সন্তানের মধ্যে তিনিই বড়। তার সঙ্গে ৩১ বছরের সংসার জীবনের ইতি টেনে প্রিয়তমা স্ত্রী জুবেদা খাতুন ২০১১ সালে পরপারে পাড়ি জমিয়েছেন। সেদিন ছিলো পহেলা রমজান। সেই থেকে তিন মেয়ে চার ছেলে আর নাতি নাতনীদের নিয়েই দিন কাটছে আতাউর রহমান আতার। এই দীর্ঘ সময়ে অনেক শুভার্থী দ্বিতীয় বিয়ের প্রস্তাব দিলেও তিনি তাতে রাজী হননি, জুবেদা খাতুনের ভালোবাসার প্রতি অমর্যাদা হবে ভেবে। আজো তিনি তার স্ত্রীর প্রতি কৃতজ্ঞ। বললেন,এই মানুষটির সহযোগিতা না পেলে হয়তো আমার অভাব অনটনের সংসারে সাংবাদিকতা সম্ভব হতোনা। বলতেই চোখে পানি টলমল হয়ে উঠলো তাঁর। তাই আর সে বিষয়ে কথা বাড়াইনি। সন্তানদের মধ্যে শাহানা আক্তার সুমি এবং জিয়াউর রহমান জনিকে বিয়ে দিয়েছেন। নাতি নাতনি আছেন। অপর পুত্র রেজাউর রহমান রহমান রনি, মাহমুদুর রহমান এহিয়া, জাকারিয়া রহমান, কন্যা ফাহিমা আক্তার এবং আমিনা আক্তার এমিকে নিয়েই তাঁর বর্তমান সুখের সংসার। ফাহিমা কলেজে এবং আমিনা এবার এস সি পরীক্ষা দেবে।
কিভাবে ফটোগ্রাফি কিংবা ফটো সাংবাদিকতায় জড়ালেন- সে প্রশ্ন করতেই স্মৃতির ঝাঁপি খুললেন আতা ভাই। ১৯৬৮ সালে স্কুল জীবনে থাকতেই ক্যামেরা হাতে নেন। ১০ টাকা দিয়ে তখন শখের বসে কেনেন ‘ডায়না ওয়ান টুয়েন্টি’ ক্যামেরা। মাঝে মাঝে ছবি তুলতেন। সে সময়ে মাছিম পুরের ঘাট দিয়ে দাড় টেনে নেয়া মাঝিদের ছবির একটি দৃশ্য তিনি ক্যামেরায় ধারণ করেছিলেন, সেই ছবিটির কথা আজো মনে আছে তাঁর। ১৯৬৪ সালে আতাউর রহমান আতার পিতা ছৈয়দ আলী মারা যান। তখন তাঁর মামা জয়নাল আবেদীন তাকে নিয়ে এলেন তাঁর হাসান মার্কেটের স্টুডিওতে। সেখান থেকে দুর দুরান্তে আউটডোর ফটোগ্রাফিতে পাঠাতেন আতাউর রহমান আতাকে। এভাবেই ক্যামেরাম্যান বা ফটোগ্রাফার হিসেবে বিভিন্ন জনের কাছে পরিচিতি গড়ে উঠলো তাঁর। বললেন, ১৯৭৩ সালে ঝরণা বাবু যখন ‘দেশবার্তা’ পত্রিকা বের করলেন তখন সাংবাদিক অজয় পাল তাকে সে পত্রিকায় নেন। ‘দেশবার্তা’ দিয়েই আতাউর রহমানের আতার ফটো সাংবাদিতা জীবন শুর“। যখন একেকটি ছবি ছাপা হতো তখন খুশির সীমা থাকতোনা তার।
এরপর ১৯৮৬ সালে দৈনিক খবর বের হলে সেখানে তিনি ফটো সাংবাদিক হিসেবে নিয়োগ পান। বিশিষ্ট সাংবাদিক মরহুম ব্যুরো প্রধান খায়রুল আমিন লস্কর মঞ্জু ছিলেন ব্যুরো প্রধান আর তিনি ছিলেন ফটো সাংবাদিক। দীর্ঘদিন এ পত্রিকাতেই সিলেটের মানুষের সুখ দু:খ হাসি কান্নার অনেক চিত্র ফুটে উঠে আতাউর রহমান আতার ক্যামেরায় । এরপর ২০০০ সালে তিনি যোগ দেন বাংলাবাজার পত্রিকায়। সেখানেও অজয় পাল ছিলেন ব্যুরো প্রধান। দীর্ঘদিন সেখানে সুনামের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেন আতাউর রহমান আতা। বাংলাবাজার অনিয়মিত হয়ে পড়ায় সিলেটের প্রাচীনতম দৈনিক সিলেট বাণীতে তিনি প্রধান আলোকচিত্রী হিসেবে যোগ দেন। বর্তমানে সে দায়িত্বেই আছেন।
পেশাগত জীবনে অনেক সাফল্য কুড়িয়েছেন আতাউর রহমান আতা। ১৯৮৮ সালে ঢাকায় প্রাচীনতম ক্যামেরা রিক্রিয়েশন ক্লাব আলোকচিত্র প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। সেখানে সারা দেশের ফটো সাংবাদিকরা অংশ নেন। এত স্নেহ ভালোবাসা শীষর্ক আলোকচিত্র প্রদর্শনীতে আতাউর রহমান আতার তোলা ছবি প্রথম পুরস্কার লাভ করে। ২য় স্থান লাভ করেন প্রখ্যাত আলোকচিত্রী রশীদ তালুকদার। এভাবে পেশাগত জীবনে আতাউর রহমান আতা অসংখ্য পুরস্কার আর সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন। সেসব পরস্কারের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে- বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন কর্তৃক প্রশংসাপত্র ১৯৯০, ক্যামেরা রিক্রিয়েশন ক্লাব, ঢাকা কর্তৃক জাতীয় ভিত্তিক আলোকচিত্র প্রতিযোগিতায় প্রথম পুরষ্কার ১৯৯৩, নান্দনিক সম্মাননা পদক ১৯৯৭, রোটারী ক্লাব অব সিলেট সেন্ট্রাল কর্তৃক প্রফেশনাল এ্যাওয়ার্ড ১৯৯৭, শেকড়ের সন্ধানে এ্যাওয়ার্ড ১৯৯৮, লায়ন্স ক্লাব অব সিলেট কুশিয়ারা কর্তৃক এ্যাওয়ার্ড ১৯৯৮-৯৯, ঊর্বশী আবৃত্তি পরিষদ কর্তৃক পদক ১৯৯৮, তারুণ্য মেলা এ্যাওয়ার্ড ১৯৯৯, এসোসিয়েসন ফর ইয়ুথ এডভান্সমেন্ট (আয়া) এ্যাওয়ার্ড ২০০০, সর্বস্থরের যুব সমাজের পক্ষ থেকে পদক ২০০২, ১৮তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক সম্মাননা পদক ২০০৩ ও বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় কমিটি কর্তৃক ৬ষ্ঠ জাতীয় সম্মলেন উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ফটো সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদান ও সাংগঠনিক কর্মকান্ডের স্বীকৃতি স্বরুপ সম্মাননা পদক ২০০৯। এছাড়া, তিনি ২০১৬ সালে সিলেটে জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সম্মাননা পদক ও ২০১৭ সালে সিলেট প্রেসকাব মুহিবুন্নেছা পুরস্কার লাভ করেন তিনি।
কথা হয় সেসময়কার সাংবাদিকতা এবং পেশাগত মান মর্যাদা নিয়ে। আ্তাউর রহমান আতা বলেন, এখন ডিজিটাল যুগ, হাতে হাতে ঘরে ঘরে ডিজিটাল ক্যামেরা, প্রযুক্তি। সময়ের প্রয়োজনে আমিও সে ধারায় যুক্ত হয়েছি। ছবি তোলায় আলাদা একটা বৈশিষ্ট এবং স্বকীয়তা ছিলো আগে। ম্যানুয়েল বা ফিল্মের ক্যামেরার ছবির মাঝে আর্ট ছিলো। ক্যামেরাম্যান নিয়ন্ত্রণ করতেন ক্যামেরা। আর এখন ক্যামেরাই নিয়ন্ত্রণ করে ক্যামেরাম্যানকে। কঠিন এ বাস্তবতার মাঝেও আমাদেরকে এগিয়ে যেতে হবে। পেশাগত জীবনে দায়িত্ববোধ নিয়ে কাজ করতে হবে। শেখার আগ্রহ এবং মনমানসিকতা থাকতে হবে। সততা থাকতে হবে। মানুষের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকতে হবে। কারো আস্থা এবং বিশ্বাসের জায়গায় আঘাত যাতে না লাগে সে চেষ্ট করতে হবে। মানুষ যাতে সাংবাদিকের উপর ভরসা করতে পারে, বিশ্বাস রাখতে পারে সে চেষ্টা করতে হবে। সামাজিক একটা দায়বদ্ধতা মাথায় থাকলে অনেক সমস্যার ছবিও তোলা যায়, সমাজ রাষ্ট উপকৃত হয়। এজন্য এ পেশায় আসা নতুন সহকর্মীদেরকে সততা নিষ্টা এবং বিশ্বস্ততার সম্পর্ক মানুষের সঙ্গে গড়ার পরামর্শ এই গুণী আলোকচিত্রীর।
তিনি তার পেশাগত জীবনে সিলেটের সাংবাদিক সমাজ, রাজনৈতিক পেশাজীবিদের অকৃত্রিম ভালোবাসা এবং সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, তাদের ভালোবাসা সহযোগিতা না থাকলে হয়তো আমার এতদূর আসা সম্ভব হতো না। এজন্য তিনি আল্লাহর দরবারে শোকরিয়া আদায় করেন। জীবনের বাকী দিনগুলো এভাবেই সকলের সঙ্গে সুখ-দু:খ ভাগাভাগি করে কাটিয়ে দিতে চান সাদাসিদে জীবনধারী ফটো সাংবাদিক আতাউর রহমান আতা। এজন্য তিনি সকলের দোয়া চান।

এই সংবাদটি 1,043 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com