বৃহস্পতিবার, ০৭ জুন ২০১৮ ১২:০৬ ঘণ্টা

সমমনা দল নিয়ে জোট গঠনের প্রক্রিয়া চলছে : হাসানাত

Share Button

সমমনা দল নিয়ে জোট গঠনের প্রক্রিয়া চলছে : হাসানাত

ডেস্ক রিপোর্ট: ইসলামী ঐক্যজোটের ভাইস চেয়ারম্যান আবুল হাসানাত আমিনী বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে সমমনা দলগুলো নিয়ে একটি জোট গঠনের প্রক্রিয়া চলছে। তিনি বলেন, শেষ পর্যন্ত তা সম্ভব না হলে ইসলামী ঐক্যজোট নির্বাচনে নিজস্ব মিনার প্রতীকে অংশ নেবে এবং সারা দেশে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেবে। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় তিনি এ কথা বলেন। আবুল হাসানাত আমিনী খেলাফতে ইসলামীর আমির ও ঢাকা মহানগরী হেফাজতে ইসলামের সাধারণ সম্পাদক। ইসলামী ঐক্যজোট দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় ২০-দলীয় জোটের অন্যতম শরিক ছিল। আগামী দলীয় সরকারের অধীনে অংশ নেবেন কিনা— জানতে চাইলে আবুল হাসানাত আমিনী বলেন, ‘আমাদের প্রার্থী তালিকা যাচাই-বাছাই চলছে। আশা করি শিগগিরই আমরা প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করতে পারব। বর্তমানে আমরা কোনো জোটে নেই। দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাব কিনা তা ঐক্যজোটের মজলিসে শূরা ঠিক করবে। তবে আমাদের স্পষ্ট বক্তব্য, আগামীতে দেশে একটি অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন দেখতে চাই।’ বিএনপির বর্তমান রাজনীতি প্রসঙ্গে হাসানাত আমিনী বলেন, ‘বিএনপির রাজনীতি আসলে কোন দিকে ধাবমান তা বিএনপি নেতারাই ভালো বলতে পারবেন। তাদের কর্মপন্থাই বলে দেবে তাদের ভবিষ্যৎ গন্তব্য কোনটি।’ মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান সম্পর্কে বলেন, ‘মাদক, ইয়াবা কারবারিদের বিরুদ্ধে অভিযানকে আমরা ইতিবাচক হিসেবে দেখছি। এ অভিযানে নিরপরাধ মানুষ যেন ক্ষতিগ্রস্ত বা হয়রানির শিকার না হয় সেদিকে সজাগ থাকতে হবে। আর শুধু চুনোপুঁটি নয় প্রকৃত গডফাদারদের গ্রেফতার করতে হবে। সর্বোচ্চ শাস্তির বিধান রেখে মাদকের বিরোধী আইন পাস করে গডফাদারদের বিচার করতে হবে।’ সরকারের ব্যর্থতা-সফলতা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘দেশে পদ্মা সেতু নির্মাণ, মেট্রোরেল প্রকল্প, মহাকাশে স্যাটেলাইট স্থাপন, তথ্য-প্রযুক্তির অগ্রগতি, বিদ্যুতের উৎপাদন বৃদ্ধি, মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা এগুলোকে জনগণ অবশ্যই সফলতা হিসেবে দেখছে। কিন্তু ব্যাংকিং খাতে আর্থিক কেলেঙ্কারি ও খেলাপি ঋণের কারণে সরকারি ব্যাংকগুলোর মূলধন ঘাটতি, বাজেটে বিভিন্ন জিনিসের ওপর অযাচিত কর আরোপ, ব্যাংক আমানতের ওপর আবগারি শুল্ক, শেয়ারবাজারে ধস ইত্যাদি সরকারের অন্যতম ব্যর্থতা। এজন্য অর্থমন্ত্রী দায়ী। তিনি যত কথা কম বলবেন অর্থনীতির জন্য ততই মঙ্গল হবে।’ রমজানে সারা পৃথিবীতে দ্রব্যমূল্যের দাম কমে আমাদের বাড়ে কেন— প্রশ্নের জবাবে আমিনী বলেন, ‘রমজানে পৃথিবীর অন্যান্য মুসলিম দেশে পণ্যের দাম কমে, যাতে মানুষের সুবিধা হয়। ব্যবসায়ীরা কম লাভে পণ্য বিক্রি করেন। কিন্তু আমাদের দেশে হয় বিপরীত। এখানে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে পণ্যের দাম বাড়িয়ে বিশ্ববাজারে পণ্যের দাম বেড়েছে বলে রিউমার ছড়ানো হয়। মূলত রমজানে সংযম নয়, আত্মশুদ্ধি নয় একদল ব্যবসায়ীর জন্য এটি আখের গোছানোর মাস। এসব অসাধু ব্যবসায়ীর তৎপরতা বন্ধ করতে সরকারকে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে।’ সারা দেশে মসজিদ নির্মাণের সরকারি পদক্ষেপ সম্পর্কে বলেন, ‘অব্যশ্যই এটা প্রশংসনীয় উদ্যোগ।’ নারী নির্যাতন বাড়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ‘নারী ঘরে নিকটাত্মীয় দ্বারা, বাইরে সহপাঠী-সহকর্মী, এমনকি অপরিচিত যে কোনো লোকের দ্বারা নিগ্রহের শিকার হচ্ছে। এই নির্যাতন-নিপীড়নের মূল কারণ হচ্ছে সমাজে ধর্মীয় অনুশাসন ও ধর্মীয় শিক্ষার অভাব। এ ছাড়া আকাশ মিডিয়া, ইন্টারনেটের কল্যাণে অশ্লীল নাটক, সিনেমা, বিজাতীয় বিতর্কিত ভিনদেশি সিরিয়ালে নারী নির্যাতন, ধর্ষণের দৃশ্য দেখেও মানুষ নারী নির্যাতনে উৎসাহী হচ্ছে, সমাজে নানা অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে।’

-বাংলাদেশ

এই সংবাদটি 1,008 বার পড়া হয়েছে