শুক্রবার, ৩১ মে ২০১৯ ১০:০৫ ঘণ্টা

সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ স্মরণে জাতীয় জনতা ফোরামের ইফতার 

Share Button

সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ স্মরণে জাতীয় জনতা ফোরামের ইফতার 

সিলেট রিপোর্টঃ

সাংবাদিকতা জীবনে তার মত একজন নির্ভীক সাংবাদিকের পৃথিবী থেকে বিদায় দেশবাসীর আশার প্রদ্বীপ নিভে গেল এবং অপূরণীয় ক্ষতি হলো। গণতন্ত্রহরণ ও গণমাধ্যম নিয়ন্ত্রণের বর্তমান অরাজক পরিস্থিতিতে তার মৃত্যু গণতন্ত্রকামী মানুষের মনে গভীর হতাশার সৃষ্টি করেছে। সাংবাদিকতার পেশাগত দায়িত্ব পালনে বরাবরই তিনি ছিলেন নির্ভীক ও দ্বিধাহীন। অবৈধ সরকারের রক্তচক্ষুর কাছে তিনি কখনোই মাথা নত করেননি। সরকারি ক্রোধের পরোয়া না করে গণতন্ত্রের পক্ষে তার উচ্চারণ ছিল শাণিত ও সুস্পষ্ট। বর্তমান দুঃসময়ে তার মত একজন ঋজু ও দৃঢ়চেতা মানুষের বড়ই প্রয়োজন ছিল। আজ ২৫ রমজান, শুক্রবার, বিকালে তোপখানা রোডস্থ একটি রেস্টুরেন্টে মাহফুজ উল্লাহ্ স্মরণে আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন ফোরামের আহ্বায়ক ডিইউজে সদস্য মোঃ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার।

অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার বলেন, বাংলাদেশের পরিবেশ সাংবাদিকতার জনক মাহফুজ উল্লাহ্। তিনি ছিলেন তরুণ সাংবাদিক সমাজের অনুপ্রেরণা। সময়ের অগ্রগামী গবেষক, লেখক, সাংবাদিক, সাহিত্যিক হিসেবে মাহফুজ উল্লাহ্ অত্যন্ত চমৎকার ছিলেন। তিনি সব দলমতের উর্ধ্বে একজন ভালো সুন্দর মনের সাদা মানুষ ছিলেন। দলমতের উর্ধ্বে সবাই তাহাকে ভালোবাসতো। তিনিও সবাইকে ভালোবাসতেন। তিনি ৫০টি বই লিখেছেন, যা ছোট বিষয় নয়। আমিও একজন প্রকাশক হিসেবে তাঁহার ৫/৭টি বই প্রকাশ করেছি। তিনি সাংবাদিকতার পাশাপাশি গবেষণা করতেন।

জনতা-ফোরামের পক্ষ মাহফুজ উল্লাহ স্বরনে আজ শুক্রবার ২৫ রমজান রাজধানী সেগুনবাগিচা বায়তুল মামুর মসজিদ ও এতিম খানায় ইফতার বিতরন করা। ইফতার বিতরন পরবর্তী ফোরামের সদস্যরা তোফখানা একটি রেষ্টুরেন্টে ইফতার পুর্ব- দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন ফোরামের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক, সাংবাদিক নেতা জাকির হোসেন। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ফোরামের আহ্বায়ক ডিইউজে সদস্য মোঃ অলিদ সিদ্দিকী তালুকদার। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন ফোরামের যুগ্ম আহ্বায়ক আবু সাঈদ খোকন, যুগ্ম আহ্বায়ক মিজানুর রহমান, যুগ্ম আব্হায়ক নাসির উদ্দিন মিন্টু, সদস্য শাখাওয়াত হোসেন, সদস্য সাইদুর রহমান, সদস্য আব্দুল্লাহ্ আল নোমার, সদস্য তোফায়েল আহমদ, দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন ফোরামের যুগ্ম আহ্বায়ক মাওলানা ইবরাহীম খলিল।

নিভে গেল আশার প্রদ্বীপ, একজন মানুষ সর্বস্তরের মানুষের কাছে কতটা গ্রহণযোগ্য হলে দলমত নির্বিশেষে সবাই ছুটে আসেন, মাহফুজ উল্লাহ্র জানাযায় না গেলে সেটা বোঝা যেত না। তাঁহার জানাযায় স্মরণকালের বৃহত্তম উপস্থিতি ও অংশগ্রহণ ঘটে জাতীয় প্রেস ক্লাবের মাঠে। সর্বস্তরের লোকজন ছুটে আসেন তাঁর জানাযায় অংশগ্রহণ নিতে। পরিশেষে শেষবারের মতন হাজারো মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হলেন বরেন্য সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ্।

অলিদ তালুকদার বলেন, বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার ঘোষক বহুদলীয় গণতন্ত্রের পূর্ণ প্রবর্তক আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৩৮ তম শাহাদাৎবার্ষিকী উপলক্ষ্যে শহীদ জিয়ার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও সমবেদনা জ্ঞাপন করে বলেন, প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান সময়ের প্রয়োজনে আবির্ভূত হওয়া বীরদের মধ্যে তিনি অন্যতম একজন সৈনিক। ১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ চট্টগ্রাম কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে মেজর জিয়াউর রহমানের কণ্ঠে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা ভেসে এলে, গোটা জাতি স্বাধীনতা যুদ্ধে উদ্বুদ্ধ হয়ে পাক-হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধে ঝাঁপিয়ে পড়ে শহীদ জিয়ার সেই বজ্রকণ্ঠের আহ্বানে সাড়া দিয়ে। “তিনি ছিলেন দেশের ক্রান্তিকালের কান্ডারী”। তিনি বেঁচে থাকলে বাংলাদেশ আজ ঘুরে দাঁড়াতো।

তারই সাথে বিএনপি চেয়ারপার্সন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অবৈধ সরকার মিথ্যার আশ্রয়ে জোর-জবরদস্তি করে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে মিথ্যার বেড়াজালে। বর্তমানে খালেদা জিয়ার অবস্থা খুবই মারাত্মকভাবে বিপজ্জনক, অসুস্থতায় তিনি দিনাতিপাত করছেন। সরকার প্রতিহিংসামূলক সাজানো মামলা দিয়ে এক বছরের অধিক সময় ধরে কারাগারে বন্দি করে রেখেছে। আমি সরকারের প্রতি আহ্বান জানাই, পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেওয়া হোক।

এই সংবাদটি 1,006 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com