বৃহস্পতিবার, ২৬ মার্চ ২০২০ ০৯:০৩ ঘণ্টা

ডা. আব্দুস শহীদ খান ছিলেন একজন মানবিক চিকিৎসক

Share Button

ডা. আব্দুস শহীদ খান ছিলেন একজন মানবিক চিকিৎসক

সাঈদ চৌধুরীঃ

মানব দেহের কোন অংশে সমস্যা দেখা দিলে ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হয়। ডাক্তারকে মানুষ বিশ্বাস করে বলেই তার কাছে যায়। সুস্থভাবে বেঁচে থাকতে হলে যেতেই হয়। বিশিষ্ট চিকিৎসক, কবি ও ছড়াকার আব্দুস শহীদ খান ছিলেন একজন বিশ্বস্ত ডাক্তার। একজন মানবিক চিকিৎসক। মানবতাবোধ দ্বারা তাড়িত এক গতিশীল জীবনের অধিকারী। তিনি ছিলেন দক্ষ ছড়াকার ও মননশীল কবি। বহুমুখী চিন্তা এবং মেধাশক্তির অধিকারী এই বিরল ব্যক্তিত্ব সেবার মন্ত্রে ছিলেন প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ও নিবেদিতচিত্ত।

একজন শহুরে মানুষ হলেও ডা. আব্দুস শহীদ খান গ্রামের অজপাড়া গাঁয়ের একেবারে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষকে হৃদয় দিয়ে ভালোবাসতেন। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে গরীব অসহায় মানুষের সেবা দানে তিনি ছিলেন অনন্য সাধারণ। নিতান্তই নির্লোভ-নিরহংকার ও অসাম্প্রদায়িক মানুষ। অনেক রোগী যাদের টাকা-পয়সা নেই, সামান্য শাকসবজি-তরিতরকারি বা পিঠা-পায়েস নিয়ে আসতো।চিকিৎসকের ফি কেউ দিল কিনা সেটা তিনি মোটেও আমলে নিতেন না।

মনে পড়ে, চৌকিদেখী নিবাসী বিশিষ্ট সালিশ ব্যক্তিত্ব লন্ডন ম্যানসনের সত্বাধিকারী হামিদ মিয়া রাতের বেলা বস্তির লোক নিয়ে আসতেন চিকিৎসা সহায়তার জন্য। ডা. আব্দুস শহীদ খান মধ্যরাত পর্যন্ত তাদের ফ্রি প্রেসক্রিপশন দিয়ে ক্ষান্ত হননি, নিজের ফার্মেসি থেকে দারাজ হস্তে ফ্রি ওষুধ দিয়ে দিতেন। চোখে ভাসে, কত আলেম-ওলামা ফ্রি চিকৎসা নিতেন। মাঝে মাঝে ঔষধ এমনকি যাতায়াতের জন্য আরো কিছু নগদও দিতেন তাদের। সারাদিনের রুজি বাসায় না নিয়ে কোন একটি সামাজিক বা ধর্মীয় সংগঠনের জন্য দিয়ে দিতেন।

ডা. আব্দুস শহীদ খান তার চেম্বারের স্টাফ ও বাসার কাজের লোকজনকে নিজের পরিবারেরই একজন মনে করতেন। মানব কল্যাণের বলিষ্ঠ বোধ ও বিশ্বাস তাকে মানবিক মানুষ হবার জন্য প্রলুব্ধ করেছে। তার অসাধারণ মানবসেবী সহধর্মীনি এই সুকৃতির সুষমা বর্ধণে প্রেরণা জুগিয়েছেন। পারিবারিক ব্যস্ততা, সন্তানদের লালনপালন সব কিছু ফেলে রেখে তিনি বিভিন্ন মানবিক কাজে অংশগ্রহণ করেছেন। সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের স্কুলে পাঠানোর জন্য চেষ্টা চালিয়েছেন অহর্নিশ, অক্লান্তভাবে।

ডা. আব্দুস শহীদ খান আবহমান বাংলার ঐতিহ্য রক্ষায় ছিলেন সদা সচেষ্ট। ঐতিহ্যের সাথে মূল্যবোধ সৃষ্টির শাশ্বত ধারা অব্যাহত রাখার জন্য তিনি বিভিন্ন সংস্থা ও সংগঠনকে অকৃপন ভাবে সহায়তা করেছেন। দূরদূরান্ত থেকে সেবা সংস্থার লোকেরা এবং দরিদ্র মানুষগুলো ছুটে আসতো তার কাছে। ছোটবেলা থেকেই তিনি অসহায় মানুষদের অবিরাম সহায়তা করেছেন।

শহরের পাটানটোলায় কবি রাগিব হোসেন চৌধুরীর বাসা ও মজুমদারিতে ডা. আব্দুস শহীদ খানের বাসা ছিল সংলাপের অঘোষিত অফিস। সংলাপের সেক্রেটারি জেনারেল হিসেবে আমিই সবচেয়ে বেশি ব্যস্ত রেখেছি তাকে। বছরের পর বছর সংলাপ সাহিত্য-সংস্কৃতি ফ্রন্টের কত আড্ডা ডা. শহীদ খানের বাসায় হয়েছে তার হিসাব মেলানো কঠিন। সাহিত্য আসরের আগে বা পরে কত মজার খাবার খেয়েছেন কবি-সাহিত্যিকেরা। তিনি যখন চেয়ারম্যান সে বছর ৪টি বড় অনুষ্ঠান সহ ৪৮টি সাহিত্য সভা করেছি আমরা।

ডা. আব্দুস শহীদ খান এক মোহনীয় মমতার অধিকারী ছিলেন। প্রতিদিন মাঝরাত অবধি আমরা এক সাথে কাটাতাম। কত শ্রেণী-পেশার মানুষ তার কাছে আসতেন। কোন না কোন ভাবে সবার উপকার তিনি করতেন। মাঝে মধ্যে তার বিজ্ঞান বিষয়ক ছড়া নিয়ে আমরা বিশ্লেষন মূলক আলোচনা করতাম। বেশ সাড়া জাগানো ছড়া। বই আকারে প্রকাশ করলে বাংলার ছড়া সাহিত্য সমৃদ্ধ হবে নিঃসন্দেহে।

আমি যখন ব্রিটিশ বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল (বিবিআইএস) প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ গ্রহন করি, তিনি ছিলেন অত্যন্ত প্রেরণা সঞ্চারকারী। একদিন সকল শিক্ষার্থী নিয়ে গল্ফক্লাব মাঠে এস্কারশনে গিয়েছি। আমাদের আমন্ত্রণে তিনিও গেছেন অতিথি হয়ে। জিসিএসি/অলেভেল শিক্ষার্থি ও অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলার জন্য অনুরোধ করলাম। তিনি ডাক্তার সুলভ সাদামাটা ভাবে কথা শুরু করলেন। আস্তে আস্তে ইতিহাস, দর্শন ও মানবিক বিষয়াদির গভীরে চলে গেলেন। এমন চমৎকার বক্তব্য দিলেন, যা আজো ডাইরি খুলে দেখতে ইচ্ছে হয়। ডা. আব্দুস শহীদ খানের প্রাণবন্ত বক্তব্যের মূল কথাটি ছিল, আমাদেরকে অনুভুতির গভীরে যেতে হবে, আত্মাকে স্পর্শ করতে হবে। আত্মা হচ্ছে মহান স্রষ্টা প্রদত্ব বিশুদ্ধ শক্তি। আর মানব জীবন হচ্ছে অদৃশ্য স্পন্দনের দৃশ্যমান বিকাশ। এর উৎসের কাছাকাছি যেতে হলে আত্মার পরিশুদ্ধির কোন বিকল্প নেই।

বিবিআইএস এর এস্কারশন সহ সৃষ্টিশীল কর্মকান্ডের প্রশংসা করে ডা. আব্দুস শহীদ খান উপস্থিত অভিভাবকদের উদ্দেশ্যে বলেন, দৃষ্টি ভঙ্গি বদলান, জীবন বদলে যাবে। বদলাতে না পারলে পুরোনো শৃঙ্খলেই আবদ্ধ থাকতে হবে। আর এজন্য শিক্ষা ও অনুশীলন প্রয়োজন। গ্রীক দার্শনিক সক্রেটিসের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, শিক্ষা হলো জিজ্ঞাসার মাধ্যমে সত্যের সন্ধান, আর এ সত্য উদঘাটনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থী সমপথের সহযাত্রী। তিনি আরো বলেন, অ্যারিস্টটল মানুষের সুপ্ত চিন্তা ও চেতনার বিকাশের পন্থাকে শিক্ষা বলেছেন। আর দার্শনিক জাঁ জাক রুশো শিক্ষাকে সকল কৃত্তিমতা মুক্ত স্বাভাবিক পথে মানুষের মনুষ্যত্বের বিকাশ হিসেবে বর্ণনা করেছেন। তিনি শিক্ষার্থিদের স্রষ্টার নিয়মে সুকুমার বৃত্তি ও সৃজনশীল প্রতিভার উন্মেষ সাধন, দৈহিক ও মানসিক বিকাশ এবং সামাজিক জীবনের উৎকর্ষতা সাধনের পরামর্শ দেন।

ডা. আব্দুস শহীদ খান জাতীয় অধ্যাপক প্রখ্যাত দার্শনিক দেওয়ান মোহাম্মদ আজরফের একটি অভিমত তুলে ধরে বলেন, শিক্ষা ব্যবস্থার মাধ্যমে যদি নৈতিক মানসম্পন্ন নাগরিক সৃষ্টি করা না যায়, তাহলে শিক্ষার সুফল লাভ হবে না। শিক্ষার মাধ্যমে ব্যক্তির চরিত্রে যদি কাঙ্খিত গুণাবলী প্রবিষ্ট করা না যায় তাহলে শিক্ষা ব্যবস্থা ব্যর্থ প্রমাণিত হবে। ব্যক্তি তথা প্রতিটি নাগরিকের মধ্যে সত্যবাদিতা, সাধুতা, ন্যায়বোধ, নিরপেক্ষতা, শৃঙ্খলা, কর্তব্যজ্ঞান, দেশসেবা ও মানবিকতার মত মহৎ গুণাবলীর সমাবেশ ঘটাতে হলে শিক্ষার্থীর মনে নৈতিক ও আধ্যাত্মিক মূল্যবোধ সৃষ্টির উপযোগী আধুনিক শিক্ষার পাশাপাশি ধর্মীয় শিক্ষার প্রসার ঘটাতে হবে।

ডা. আব্দুস শহীদ খানের বক্তব্যটি এখানে প্রণিধানযোগ্য এজন্য যে, তার সারা জীবনের সকল কর্ম এই বক্তব্যের মধ্যে ফুটে উঠেছে।তার ভাবনা চিন্তা ও কর্মের মধ্যে কোন বৈপরীত্য ছিলনা।তিনি আজীবন সমাজের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করেছেন। বহুমুখী কর্মোদ্যম ও স্পৃহাকে আপন পরিসরে পরিব্যাপ্ত করার সক্ষমতা জাগিয়ে তুলতে সক্ষম হয়েছেন। মেধা ও সাধনার মেলবন্ধনের ফলে বহু অনগ্রসর মানুষকে সাফল্যের শিখরে পৌছে দিতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি ছিলেন একজন সত্যিকারের ভালো মানুষ, আলোকিত মানুষ।

ডা. আব্দুস শহীদ খানের ছেলে তরুণ লেখক মাসুম খান ও বন্ধু সাংবাদিক গল্পকার সেলিম আউয়াল জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ সিলেটের উদ্যোগে কবি ও ছড়াকার ডা. আব্দুস শহীদ খানের স্মরণ সভার আয়োজন করা হচ্ছে। সংসদের সাথে তিনি সম্পৃক্ত ছিলেন। বিশেষ করে অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও উপমহাদেশের প্রাচীনতম বাংলা সাহিত্য পত্রিকা মাসিক আল-ইসলাহ’র প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক মুহাম্মদ নুরুল হকের খুব কাছের মানুষ ছিলেন তিনি। সংসদের এই মহতি উদ্যোগকে স্বাগত জানাই। অনুষ্ঠানটি আশা করি সফল ও স্বার্থক হবে। পরিশেষে মরহুম আব্দুস শহীদ খানের রুহের মাগফরাত কামনা ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি। মহান আল্লাহ তাকে জান্নাতবাসি করুন। আমিন।

এই সংবাদটি 1,125 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com