ফুলতলীর পীরছাহেব কিবলার প্রতি প্রিন্সিপাল হাবীবুর রহমানের ঐতিহাসিক চিঠি

প্রকাশিত: ৯:৩২ পূর্বাহ্ণ, জুন ৫, ২০২০

ফুলতলীর পীরছাহেব কিবলার প্রতি প্রিন্সিপাল হাবীবুর রহমানের ঐতিহাসিক চিঠি

মাজহারুল ইসলাম জয়নালঃ

শামছুল উলামা, আল্লামা আব্দুল লতিফ চৌধুরী ফুলতলী সাহেব রহ: এর প্রতি, প্রিন্সিপাল মাওলানা হাবীবুর রাহমান রহ. এর হাতে লিখা দূর্লভ একটি পত্র!
১৯৯৪ সনে তসলিমা নাসরিনের আন্দোলনের সময় প্রিন্সিপাল হাবিবুর রহমান রহ: আল্লামা ফুলতলী রহ. কে নিবেদিত চিঠির ভাষা প্রমাণ করে, আল্লামা ফুলতলীর প্রতি প্রিন্সিপাল রহ: এর ঈমানী বন্ধন, মায়া-মহব্বত কত সুদৃঢ় ছিল।ছোটখাটো বিষয়ে মতের পার্থক্য থাকা সত্তেও তৎকালীন সময়ে আমাদের সম্মানিত উলামায়ে কেরামদের মধ্যে কি পরিমাণ শ্রদ্ধাবোধ আর ভালোবাসা ছিল পরস্পরের প্রতি, এই চিঠিই তার কিছুটা প্রমাণ পেশ করে।
শায়খে বায়মপুরী রহ:,মাওলানা আতহার রহ: শায়খে কৌড়িয়া রহ: , শায়খে গহরপুরী রহ:, শায়খে বর্ণভী রহ:, খতিব আল্লামা উবায়দুল হক রহ: আল্লামা মুহিউদ্দীন খান রহ:, পীর সাহেব চরমোনাই রহ: সহ দেওবন্দি আলেমদের সাথে আল্লামা ফুলতলী রহ: এর ঈমানী সম্পর্ক কত গভীর ছিল তা অতীতের ইতিহাস সাক্ষী।সিলেটের সকল আন্দোলন- সংগ্রামে, উলামায়ে দেওবন্দ ও উলামায়ে ফুলতলী একই সারিতে ছিলেন বরাবর।এই চিঠি আমাদের জন্য অনেক শিক্ষণীয়,বিশেষ করে তরুণ আলেমদের জন্য এক ঐতিহাসিক দলীল। আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আমাদের সব আকাবিরদেরকে জান্নাতের উঁচু মাক্বাম দান করুন।
ঈমানী চেতনায় আমাদের সকলকে পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়ার তাওফিক দান করুন,আমিন।

(উর্দু ভাষায় লিখিত চিঠির বাংলা অনুবাদ)

**আমার সেবাপ্রাপ্ত এবং আমার সম্মানী, তরীকতের পীর, শরীয়তের আমীর, স্বাধীনতার বীর, মারিফাতের ভেদ সম্পর্কে অবগত, হযরাতুল আল্লাম, সাহিবে কিবলাহ ফুলতুলী, (আপনার সম্মান বৃদ্ধি হোক)।

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহু
মান্যবর, আশাকরি আল্লাহ তা‘আলার অনুগ্রহে ভালো ও সুস্থ থাকবেন। আপনার দুআর বরকতে আমরা সবাই ভালো আছি।
বর্তমান আন্দোলনের সামনে আপনার সাথে মিলিত হয়ে এবং আপনার সান্নিধ্য লাভে ঈমানের আলো এবং এক নতুন জীবন মিলেছে। আল্লাহ করুন আমাদের এই সম্পর্ক মৃত্যু পর্যন্ত অটুট থাকুক।
মহান আল্লাহ তা‘আলা সাক্ষি যে, আমরা কোনো ধরণের ধংসাত্বক কাজ করিনি এবং আমাদের এটা ধারণাও ছিলো না যে, একটি বিরাট বিক্ষোভ সমাবেশে হঠাৎ একজন দায়িত্বশীল মন্ত্রী এসে উপস্থিত হবেন এবং মুহূর্তেই বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়ে যাবে, যেমনটি ঘটনাক্রমে হয়ে গেলো, যার দায়িত্ব আমাদের উপর বার্তায় না।

মোটকথা, এমনই হওয়ার কথা ছিলো হয়ে গেলো, وكان امر الله مفعولا(আল্লাহর নির্দেশ অবধারিত)। হতে পারে এতে কোনো কল্যাণ নিহীত রয়েছে। )عسى ان تكرهوا شيئا وهو خير لكمহতে পারে তোমরা এমন অনেক কিছু অপছন্দ করো, অথচ তা তোমাদের জন্য কল্যাণকর(।
আমার মহামান্য, এন জি ও (N G O) যিন্দিক এবং মুরতাদদের বিরুদ্ধে যে প্রোগ্রাম আপনি হাতে নিয়েছেন এবং নিজের ঈমানী ফরয দায়িত্ব হিসেবে মাঠ পর্যায়ে প্রতিক্রিয়ামুলক কাজের চেষ্টা সাধনা শুরু করেছেন, এই কাজে অনেক কুরবানী দেওয়ার প্রয়োজন পড়বে। কারণ মুরতাদদের ফিতনা এই দেশ থেকে চিরতরে কুরআনের শিক্ষা এবং দ্বীন মিটানোর এক আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের অধীনে সংঘটিত হচ্ছে, যা থামানোর রাস্তা সহজ নয়। ইখলাস এবং নিষ্টার সাথে আমাদের চেষ্টা চলমান থাকবে, তবে বাতিলের পক্ষ থেকে আমাদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ও অপবাদের ঝড় বইবে। তারপর যখন আমরা ঈমানী শক্তি দিয়ে সকল সম্মুখ বিপদের উপর ধৈর্য ধরে এগিয়ে যাবো তবে আল্লাহ তা‘আলা তার অনুগ্রহে আমাদেরকে দিক নির্দেশনা দিবেন।(والذين جاهدوا فينا لنهدينهم سبلنا ) (যারা আমার রাস্তায় চেষ্টা করে আমাদের রাস্তাসমূহে বাতলে দিবো)।
এই সময় বান্দা গোপনীয়তার সাথে এক ধরণের কারাগারের জীবন কাটাচ্ছে। আমাদের ছাত্ররা কারাগারে রয়েছে। তারপরও আল্লাহ তা‘আলার শুকরিয়া যে, আন্দোলন নিয়মানুযায়ী চলমান রয়েছে। আপনি মহামান্যের কাছে আবেদন হলো, আপনি আমাদের ছাত্র এবং উস্তাদদের সাহস যোগাবেন এবং মাঠে ময়দানে চেষ্টার ক্ষেত্রে নিরাপত্তা বজায় রাখার পরামর্শ দান করবেন। আপনার উপস্থিতি আমাদের সাহস যোগাবে। সম্ভব হলে কোনো গোপন জায়গায় আমরা আপনার সাথে মিলিত হয়ে ভবিষ্যত পরিকল্পনার ব্যাপারে দিক নির্দেশ গ্রহণ করবো। সকল হযরাতের কাছে মাসনূন সালাম পেশ করলে আমার উপর অনুগ্রহ হবে। বিশেষ দুআর আবেদন এবং ক্রটিসমূহের ক্ষমা চেয়ে বিদায় নিচ্ছি।

*আপনার জুতা বহনকারী
মুহাম্মদ হাবিবুর রাহমান (আফাল্লাহু আনহু)০৭.০৭.৯৪ ইং।

(যাজাকাল্লাহ,জনাব মুফতি মোস্তফা সুহেল হেলালী ভাইকে।১৯৯৪ সালের লেখা চিঠি,তাই উর্দু লেখা অনেকটা অস্পষ্ট, কষ্ট করে আমাকে চিঠির বাংলা অনুবাদ করে দেওয়ার জন্য,ধন্যবাদ।)

চিঠিটি পড়ে মাওলানা শাহ মমশাদ আহমদ নিজ ফেসবুক আইডিতে লিখেনঃ
নাস্তিক-মুর্তাদ বিরুধী আন্দোলনের সুচনায় হযরত ফুলতলী পীর সাহেব রঃ এর সহযোগিতা চেয়ে প্রিন্সিপাল রহ এপত্র লেখেন,তিনি তখন আত্মগোপনে,জামেয়া মাদানিয়ার ১৮ জন ছাত্র কারাগারে, চিঠিতে হুজুর সেকথা উল্লেখ করেছেন,আমি গর্বিত সে কাফেলায় আমিও ছিলাম,আলহাজ্ব মাওলানা আতাউর রাহমান,মাওলানা মুখলিছুর রাহমান সহ এক মাসের অধিক সময় কারাগারে ছিলাম,ফুলতলী পীর সাহেব হুজুরের ডাকে সাড়া দিয়ে আমাদের কারাগারে দেখতে যান,প্রিন্সিপাল রহঃ সুন্নাত অনুযায়ী মাত্র তিন দিন আত্মগোপনে থাকার সকলের অনুরুধ ও প্রসাসনের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে রাজপথে নেমে আসেন,তীব্র আন্দোলনের মুখে আমাদের মুক্তি হয়,জামেয়ার বর্তমান প্রিন্সিপাল মাওলানা ছামিউর রহমান মুসা তখন বালক, সম্ভবত মক্তব ৫ম বর্ষের ছাত্র,মুফতী আব্দুর রাহমান ইউসুফ ও ছাত্র নেতা তারেক তখন খুবই ছোট, পুলিশ বারবার বাসায় তল্লাশি করত,তারেকদের কান্নায় বাতাশ ভারী হয়ে যেত,।
জেল থেকে বের হয়ে ফুলতুলী রহঃ এর সাথে সাক্ষাৎ করতে গেলাম,দর্শানার্থী মানুষের ভীড়, হুজুর আমাদের দেখেই বললেন, সিংহের বাচ্চারা ইউসুফ আঃ এর সুন্নাত আদায় করে এসেছে,আমাদের আপ্যায়ন করালেন,আমি বললাম,আমাদের নসিহত করুন,তিনি সিলেটি ভাষায় বললেন,আমার একই খতা তুমরা এখেখজন হবিবুর রাহমান হও। একথা এখনো আমার কানে ভাসে।
হুজুর আরও অনেক কথা বলেছিলেন,প্রিন্সিপাল রহঃ স্মারকে লিখব ইনশাআল্লাহ, ফুলতলী সাহেব রঃ যে পরিমান প্রিন্সিপাল রহ কে মুহাব্বাত করতেন তা ভাষায় প্রকাশ করার নয়,আল্লাহ উভয় কে জান্নাতের উচু মাকাম দান করুন।

এই সংবাদটি 2555 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com