শিক্ষাসফর শেষে হাওর মন্ত্রণালয়ের দাবি জমিয়তের

প্রকাশিত: ৭:৩০ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২, ২০২১

শিক্ষাসফর শেষে হাওর মন্ত্রণালয়ের দাবি জমিয়তের

সিলেট রিপোর্ট :

ছাত্র জমিয়ত ও যুব জমিয়ত বাংলাদেশ, মোহনগঞ্জ উপজেলা শাখা (নেত্রকোনার) উদ্যোগে দেশের ভাটিবাংলার হাওর জনপদে শিক্ষা সফর শেষে কয়েকটি দাবি তুলে ধরা হয়েছে। ঝিমটি-তেতুলিয়া থেকে ১ আগস্ট সকাল ১০ টায় সফর শুরু হয়। উকিল মুন্সির স্মৃতিবিজড়িত জৈনপুর, কামালপুর-জালালপুর হয়ে গাগলাজুরস্থ চরহাইজদা বেড়িবাঁধ ও শ্যামপুর-গেরিহাইরস্থ সরকার কর্তৃক গৃহহীনদের জন্য নির্মিত (গুচ্ছগ্রাম) বাড়ী পরিদর্শন শেষে ডিঙ্গাপুতা হাওরের সূর্যাস্ত দেখে তেতুলিয়া ঘাটে এসে মাগরিবের আগেই মাওলানা জামিল আহমদ জকিগন্জীর
মোনাজাতের মাধ্যমে সফরের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। শিক্ষাসফরে আমির ও রাহবারের দায়িত্বপালন করেন মাওলানা তুফায়েল আহমদ ও জিহাদুল ইসলাম সানিয়াদ।
কুরআন তেলাওয়াত ও সংগীত পরিবেশন করেন হাফেজ আবুল খায়ের (জন্মান্ধ হাফেজ)।
অভ্যর্থনা জানান মাওলানা কাজী সাইফুল ইসলাম
,মাওলানা রিয়াজ উদ্দীন।

পাঠচক্র : মুসা আল হাফিজের লেখা মুক্তিযুদ্ধ ও জমিয়ত এবং রুহুল আমীন নগরীর লেখা এসো উকাবের ছায়াতলে বইটি ভ্রমনপাঠে ছিলো।
খাবার: খাবার তালিকায় ছিলো খাশির বিরিয়ানি, ঠাণ্ডা পানি-লিচু,চকলেট এবং ঝালমুড়ি।
জাতীয় পতাকা ও রাসুল সা: কর্তৃক ব্যবহৃত সাদা-কালো ডোরা বিশিষ্ট উকাব পতাকায় সুসজ্জিত ছিলো নৌযান।
স্বেচ্ছা সেবক: কবির আহমদ, আফিফুর রহমান রাসেল, সাইফুল ইসলাম খোকা।
চরহাইজদা বেড়িবাঁধে সমবেতদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন মোহনগঞ্জ উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী, যুব জমিয়তের কেন্দ্রীয় সহসাংগঠনিক মাওলানা রুহুল আমীন নগরী। জমিয়ত নেতা নগরী  বলেন,
মোহনগঞ্জ উপজেলার ডিঙ্গাপোতা হাওর ও তৎসংলগ্ন এলাকার ১৪ হাজার হেক্টর জমির বোরো ধান ওই চরহাইজদা বাঁধের ওপর নির্ভরশীল।
২০১৭ সালে ওই বাঁধ ভেঙে মোহনগঞ্জের হাজার হাজার কৃষকের ১৫২ কোটি টাকার বোরো ধান বিনষ্ট হয়। এরপর হাওরের ফসল রক্ষার জন্য প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান চরহাইজদা বেড়িবাঁধ শক্তিশালীকরণের এ উদ্যোগ গ্রহণ করেন। এবার ওই বাঁধের সাড়ে ৫ কিলোমিটার শক্তিশালীকরণে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৭ কোটি টাকা। পাউবো সূত্রে জানা গেছে, মোহনগঞ্জ উপজেলার ডিঙ্গাপোতা হাওরের ফসল রক্ষার জন্য চরহাইজদা ডুবন্ত বাঁধ হচ্ছে ৩০ কিলোমিটার।

    1. তিনি বলেন,বাংলাদেশের প্রায় দুই কোটি মানুষের বাস হাওর অঞ্চলে। হাওরের বাঁধ নির্মাণ ও ব্যবস্থাপনায় কাজের স্বচ্ছতা আর জবাবদিহীতার অভাবে প্রায় প্রতিবছর নিঃস্ব হতে হয় কৃষকরা। এ সমস্যা সমাধানে কার্যকর হাওর বোর্ড ও হাওর বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের বিকল্প নেই। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর সহযোগী সংগঠন যুব ও ছাত্র জমিয়ত মোহনগঞ্জ উপজেলার নেতৃবৃন্দ এর সমাধান চান।
      তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নিকট
      কয়েকটি দাবি পেশ করেন। তন্মধ্যে
      # হাওর জনপদে স্বাস্থ্যসেবা ও বিশুদ্ধ খাবার পানি নিশ্চিত করা হোক।
      # ফসল ক্ষতিগ্রস্হদের নিয়মিত প্রণোদনা দেওয়া হোক।
      # গাগলাজুর বাজারে পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন করা হোক।
      # ধর্মপাশা, মধ্যনগর,খালিয়াজুড়ি উপজেলা এবং বারহাট্রা ও মদনের কিয়দাংশ নিয়ে মোহনগঞ্জ উপজেলা কে পূর্নাঙ্গ জেলা ঘোষণা করা হোক।
      #হাওরের বিশেষ অন্চল নিয়ে -হাওর বিষয়ক স্বতন্ত্র মন্ত্রণালয় প্রতিষ্ঠা করা হোক। এসব দাবিতে গণসচেতনতা তৈরি করতে-
      সুনামগঞ্জের নিম্নাঞ্চল ও নেত্রকোণা জেলাধীন মোহনগঞ্জে পূর্বাঞ্চলে গাগলাজুর অবস্থিত হাইজদা বেরিবাঁধ, ডিঙ্গাপুতা হাওর, উকিল মুন্সীর স্মৃতিবিজড়িত জৈনপুর ভ্রমন।
      ৬০ জনের কাফেলায় ছিলেন-ডা.মাওলানা সাইফুল ইসলাম, হা: মাওলানা মুশাররফ, মাওলানা সুলাইমান, হা: আব্দুল লতিফ রানা, হা: জাকির হোসাইন পাভেল, মাওলানা ইকবাল হোসাইন,মোবারক হোসাইন,মামুনুর রশীদ, ইব্রাহিম, জাহিদুল ইসলাম, শামসুল ইসলাম, শফিকুল ইসলাম আকাশ, হা: আরমান হোসাইন, নূরে আলম, মনোয়ার হোসাইন, বিলাল আমিন সৌরভ, মো: ইয়াসিন, মো: পিয়াস, নাজমুল হক, নুরুল হুদা, মনজুরুল হক, সাকিব আল হাসান, মাজহারুল ইসলাম, জুবায়ের গাসান, আলী আমজাদ, মুস্তাকিম প্রমুখ।

এই সংবাদটি 82 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com