বুধবার, ০৯ মে ২০১৮ ০৫:০৫ ঘণ্টা

বিদায়ী বয়ানে-কাঁদলেন-কাঁদালেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

Share Button

বিদায়ী বয়ানে-কাঁদলেন-কাঁদালেন আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী

আনোয়ার বিন মাজিদ: কোরআন হাদীস থেকে বর্তমান যুগের নতুন নতুন সমস্যার সমাধান বের করা তোমাদের দায়িত্ব। তোমরা এখন ফারেগ হয়ে গেছ। এর অর্থ হলো, তোমাদের উপর এখন অনেক বড় দায়িত্ব এসে গেছে। গতকাল ৮মে (মঙ্গলবার) বাদ যোহর দারুল উলূম হাটহাজারীর বাইতুল করীম মসজিদে চলতি শিক্ষাবর্ষের আখেরী নছিহতে আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী বিদায়ী ছাত্রদের উদ্দেশ্য করে এসব কথা বলেন।

দারুল উলূম হাটহাজারীর সহকারি মহাপরিচালক আরো বলেন, কুরআন হাদীসের ইলম অর্জন শেষ করে আপনারা আজ স্বজাতীর নিকট প্রত্যাবর্তন করছেন। আপনাদের উপর অর্পিত গুরু দায়িত্ব হলো,পরিবার পরিজনসহ এলাকার মানুষদেরকে পরকালের ভীতি প্রদর্শন করবেন। সর্বত্র দ্বীনের প্রচার প্রসার করবেন। ইসলামের জন্য নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করবেন।

তিনি আরো বলেন, ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবনব্যবস্থার নাম। কুরআন হাদীসে মানবজীবনের সৃষ্ট যাবতীয় সমস্যার সমাধান রয়েছে। তাই বর্তমান সময়ের আধুনিক মাসআলা সমূহের সমাধানের জন্য কুরআন হাদীসের সরনাপন্ন হবেন। কুরআন হাদীস থেকে আধুনিক মাসআলা সমূহের সমাধান বের করে জাতীর সামনে তুলে ধরবেন৷

আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, নিজেকে দীনের খেদমতে নিয়োজিত রাখবেন৷ উত্তরবঙ্গে খ্রীষ্টান মিশনারী ও কাদিয়ানীরা সরলমনা সাধারণ মুসলমানদের ঈমান ছিনিয়ে নিচ্ছে। তাই বাতিল অপশক্তির বিরুদ্ধে আপোষহীন ভাবে কাজ করে যাবেন। এবং বেশি বেশি কওমী মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে বাতিল অপশক্তির বিরুদ্ধে দ্বীনের মজবুত দূর্গ গড়ে তুলবেন৷

বাৎসরিক বিদায়ী ও ফারেগীন ছাত্রদের ভবিষ্যৎ পাথেয় স্বরূপ মূল্যবান দিকনির্দেশনা শেষে দোয়ার মাধ্যমে বিদায়ি নছিহত শেষ করা হয় ৷
এতে জামিয়ার উস্তাদবন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বয়ান শেষে আল্লামা আহমদ শফি যখন মুনাজাতে হাত তুলেন তখন সকল ছাত্র ও ওস্তাদগণের মাঝে কান্নার রোল পড়ে যায়। দোয়া শেষেও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও ছাত্রবৃন্দ সজোরে কান্না করছিলো৷ কান্নার আওয়াযে মসজিদও যেন কান্না করছিল৷ মসজিদ থেকে নিজ কামরায় যাওয়ার পুরো পথেই আল্লামা বাবুনগরীর চোখ বেয়ে অশ্রু ঝরছিল ৷

ইউছুফ বিন মাছুম
নিজস্ব সংবাদদাতা গুরু দায়িত্ব হলো,পরিবার পরিজনসহ এলাকার মানুষদেরকে পরকালের ভীতি প্রদর্শন করবেন। সর্বত্র দ্বীনের প্রচার প্রসার করবেন। ইসলামের জন্য নিবেদিত প্রাণ হয়ে কাজ করবেন।

তিনি আরো বলেন, ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবনব্যবস্থার নাম। কুরআন হাদীসে মানবজীবনের সৃষ্ট যাবতীয় সমস্যার সমাধান রয়েছে। তাই বর্তমান সময়ের আধুনিক মাসআলা সমূহের সমাধানের জন্য কুরআন হাদীসের সরনাপন্ন হবেন। কুরআন হাদীস থেকে আধুনিক মাসআলা সমূহের সমাধান বের করে জাতীর সামনে তুলে ধরবেন৷

আল্লামা বাবুনগরী আরো বলেন, নিজেকে দীনের খেদমতে নিয়োজিত রাখবেন৷ উত্তরবঙ্গে খ্রীষ্টান মিশনারী ও কাদিয়ানীরা সরলমনা সাধারণ মুসলমানদের ঈমান ছিনিয়ে নিচ্ছে। তাই বাতিল অপশক্তির বিরুদ্ধে আপোষহীন ভাবে কাজ করে যাবেন। এবং বেশি বেশি কওমী মাদরাসা প্রতিষ্ঠা করে বাতিল অপশক্তির বিরুদ্ধে দ্বীনের মজবুত দূর্গ গড়ে তুলবেন৷

বাৎসরিক বিদায়ী ও ফারেগীন ছাত্রদের ভবিষ্যৎ পাথেয় স্বরূপ মূল্যবান দিকনির্দেশনা শেষে দোয়ার মাধ্যমে বিদায়ি নছিহত শেষ করা হয় ৷
এতে জামিয়ার উস্তাদবন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বয়ান শেষে আল্লামা আহমদ শফি যখন মুনাজাতে হাত তুলেন তখন সকল ছাত্র ও ওস্তাদগণের মাঝে কান্নার রোল পড়ে যায়। দোয়া শেষেও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী ও ছাত্রবৃন্দ সজোরে কান্না করছিলো৷ কান্নার আওয়াযে মসজিদও যেন কান্না করছিল৷ মসজিদ থেকে নিজ কামরায় যাওয়ার পুরো পথেই আল্লামা বাবুনগরীর চোখ বেয়ে অশ্রু ঝরছিল ৷

এই সংবাদটি 2,356 বার পড়া হয়েছে