ফসল হারিয়ে আন্দোলনে সুনামগঞ্জের কৃষকরা

প্রকাশিত: ৯:০৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৩, ২০১৭

ফসল হারিয়ে আন্দোলনে সুনামগঞ্জের কৃষকরা

সিলেট রিপোর্ট: বাংলাদেশের শস্য ভান্ডার হিসাবে খ্যাত সুনামগঞ্জ জেলার অন্যতম বৃহত্তর হাওর নলুয়া ও মই হাওরসহ জগন্নাথপুর উপজেলার ১৫টি হাওরের মধ্যে প্রায় সবকটি হাওর-ই পানিতে তলিয়ে গেছে। প্রায় ৪০ হাজার হেক্টর কাচা ও আধা পাকা বোরো ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। গত কয়েক দিনের অকাল বৃষ্টি ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢল উপযুক্ত উচ্চতার হাওর রক্ষা বেরীবাঁধ না থাকায় অতি সহজেই পানি হাওরে ঢুকে কৃষকদের কষ্টার্জিত বোরো ফসল বিগত বছরের মত এবারও পানিতে তলিয়ে যাওয়াতে কৃষকদের মধ্যে হাহাকার চলছে। কৃষকরা সরকারি বরাদ্দকৃত কোটি কোটি টাকা লুটপাটকারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা, ঠিকাদার ও পিআইসি সদস্যদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন।

কৃষকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যদি পাউবো’র কর্মকর্তা, ঠিকাদার ও পিআইসির সদস্যরা সরকারের বিধি অনুযায়ী চলতি বছরে ১লা জানুয়ারী থেকে ফেব্রæয়ারী মাসের মধ্যে সময় মত সঠিক উচ্চতার বেরীবাঁধ নির্মান করত, তাহলে হয়তো এত সহজে হাওরে পানি ঢুকতনা।

সরেজমিন হাওর পরিদর্শন কালে কৃষকরা জানান, বেরীবাঁধ নির্মানে ৪ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হলেও দূর্নীতিবাজরা কোন কাজ না করেই, লুটপাট করে নিয়েছে। বিভিন্ন পত্রিকায় এ সংক্রান্ত কয়েকটি সংবাদ প্রকাশ হলে, ঠিকাদার ও পিআইসির লোকেরা গত ২ সপ্তাহ আগে নামকাওয়াস্তে বাঁধে দায়সারা ভাবে কিছু বালু মাঠি ফেলে। গত কয়েকদিন থেকে বৃষ্টি শুরু হয়। অন্য দিকে পাহাড়ী ঢলে অত্যান্ত দায়সারাভাবে নির্মিত দুর্বল বালি মাঠির বাঁধ ভেঙ্গে বৃহত্ত হাওর নলুয়াসহ বড় বড় সবকটি হাওর পানিতে তলিয়ে যায়। এতে প্রায় ৪০ হাজার হেক্টর কাচা আধা পাকা বোরো ফসল পানির নীচে তলিয়ে যায়। ক্ষয়-ক্ষতি হবে প্রায় কয়েক হাজার কোটি টাকা। কৃষকদের হাহাকার ও আর্তনাদ চললেও রাজনৈতিক নেতা ও জনপ্রতিনিধিরা রয়েছেন অনেকটা উদাসীন। তাদের যেন করার কিছু নেই। হাওরগুলো তলিয়ে গেলেও অসহায় গরীব কৃষকদের পাশে কোন নেতা বা জনপ্রতিনিধিকে দেখা যায় নি। স্থানীয় কৃষকরা বেরীবাঁধের টাকা লুটপাটকারীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী করেছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাছুম বিল্লাহ জানান, সোমবার হাওর পরিদর্শন করে দেখেছি নলুয়া হাওরসহ উপজেলার সবকটি হাওরই পানিতে তলিয়ে গেছে। তিনি সঠিক উচ্চতার মান সম্মত বেরীবাঁধ নির্মিত না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, পাউবো, ঠিকাদার ও পিআইসি’র সদস্যরা সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করেনি। এদের দায়িত্বহীনতা ও গাফিলাতির ফলে উপযুক্ত বেরীবাঁধ নির্মিত হয়নি। ৪ কোটি টাকার মধ্যে অর্ধেক টাকারও কাজ হয়নি। এ ধরনের লুটপাট মেনে নেওয়া যায় না। আমি এদের বিরুদ্ধে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে রিপোর্ট পাঠিয়েছি। এদেরকে শাস্তির মুখামুখি হতে হবে।

এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা, ঠিকাদার ও পিআইসি সদস্যদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবীতে হাজার হাজার কৃষক জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয় ঘেরাও করে রাখেন। দুপুর ১২ টা থেকে হাজার হাজার কৃষক উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রশাসনিক ভবন ঘেরাও করে অবস্থান কর্মসূচী পালন করতে থাকেন।

এ সময় বক্তব্য রাখেন কৃষক দেলয়ার মিয়া, জামিল মিয়া, তৌফিক আলী ও ছুরাব আলী প্রমুখ। এ সময় বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মেম্বাররা উপস্থিত থাকলেও রহস্যজনক কারনে কোন বক্তব্য দিতে রাজি হয় নি। বক্তাগণ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা ঠিকাদার ও পিআইসি সদস্যদের বেরীবাঁধ নির্মানে ব্যাপক দূর্নীতি, দায়িত্বহীনতা ও গাফিলতির জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করে বরাদ্দকৃত কোটি কোটি টাকা লুটপাটকারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা ঠিকাদার ও পিআইসি সদস্যদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানান। সেই সাথে বিভিন্ন দাবী দাওয়া সরকারের কাছে তুলে ধরেন। দাবীগুলোর মধ্যে হচ্ছে, সুনামগঞ্জ জেলাকে দুর্গত এলাকা ঘোষনা, ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ক্ষতিপুরন প্রদান। অত্র এলাকার সকল নদী ও খাল খনন ও ভবিষ্যতে বেরীবাঁধ নির্ধারিত সময়ে সঠিক উচ্চতায় নির্মানসহ বাংলাদেশের শস্য ভান্ডার সুনামগঞ্জ জেলার সকল হাওর রক্ষার একটি সুষ্ঠ পরিকল্পনা গ্রহনের জন্য সরকারের নিকট জোর দাবী জানান। বিকেল ৫টায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আলমগীর কবির কৃষকদের দাবীর প্রতি একাত্বতা প্রকাশ করে এবং পাউবো’র দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ঠিকাদার ও পিআইসি সদস্যদের গ্রেফতারের আশ্বাস দিলে কৃষকরা তাদের কর্মসূচী স্থগিত করেন। কৃষকরা জানান আমাদের দাবী বাস্তবায়ন না হলে পরবর্তীতে কটোর আন্দোলন গড়ে তুলা হবে।

এই সংবাদটি 72 বার পঠিত হয়েছে

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

[latest_post][single_page_category_post]

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com