মঙ্গলবার, ০৪ ডিসে ২০১৮ ১২:১২ ঘণ্টা

বিএনপির ভোটে টিকে থাকা নিয়ে শঙ্কা

Share Button

বিএনপির ভোটে টিকে থাকা নিয়ে শঙ্কা

ডেস্করিপোর্ট: বিএনপি ও তার নেতৃত্বাধীন জোটের ভেতরে ও বাইরে এখন একটাই আলোচনা—দলটি শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে টিকে থাকতে পারবে তো, নাকি মাঝপথে নির্বাচন বর্জন করবে?

এই আলোচনার কারণ হলো বিএনপি মনোনীত প্রার্থীদের ৮১টি মনোনয়নপত্র বাতিলের পাশাপাশি সারা দেশে নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। প্রশাসনও পুরোপুরি সরকারের নিয়ন্ত্রণে বলে মনে করছেন বিএনপি জোটের নেতারা। রবিবার ২০ দলীয় জোটের বৈঠকে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে নানামুখী শঙ্কার কথা আলোচনা হয়। পরে জোটের নেতা ড. অলি আহমদ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত টিকে থাকা হয়তো হবে না। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ৮১ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল করে সরকারি দলের জয়লাভকে এগিয়ে রাখা হয়েছে।

যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়ায় রবিবার বিএনপির প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে মোট ৮১টি, যার মধ্যে চেয়ারপারসন কারাবন্দি খালেদা জিয়াসহ দলটির সাবেক মন্ত্রী ও এমপি থেকে শুরু করে অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতা রয়েছেন। আর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় বিএনপির কোনো প্রার্থীই রইল না ছয়টি আসনে। বিএনপির অভ্যন্তরীণ হিসাব হচ্ছে, ওই ছয়টিসহ দলীয় প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল করে ২০ থেকে ২৫টি আসনে সরকারি দলের জয় এরই মধ্যে নিশ্চিত করা হয়েছে। কারণ বিএনপির ওই আসনগুলোতে ‘বিকল্প’ প্রার্থী হিসেবে যাঁরা টিকে আছেন তাঁদের পক্ষে আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থীদের সঙ্গে লড়াই করে টিকে থাকা কঠিন হবে।

অন্যদিকে আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থীরই মনোনয়নপত্র বাতিল হয়নি। তবে ওই দলের জয়লাভের ক্ষেত্রে যাঁরা বাধার সৃষ্টি করতে পারেন, সেই ‘বিদ্রোহী’ বলে পরিচিত প্রার্থীদের মধ্যে ৩৫ জনের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এর ফলাফলও সরাসরি সরকারি দলের পক্ষে গেছে।

জানতে চাইলে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিএনপি ও তার সঙ্গে থাকা জোট নির্বাচনে অংশ নিয়েছে। কিন্তু লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরির বদলে উল্টো একতরফাভাবে বিএনপি মনোনীত প্রার্থীদের মনোনয়ন বাতিল করা হচ্ছে। অন্যদিকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীকে জেতানোর জন্য তাদের দলের বিদ্রোহী প্রার্থীদের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে। এর ফলে জনগণের সামনে এটি পরিষ্কার যে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নীলনকশা বাস্তবায়নের চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু আমরা তা কিছুতেই বাস্তবায়িত হতে দেব না। সময়মতো এর জবাব দেওয়া হবে।’

বিএনপি জোটের নেতারা বলছেন, সব কিছু হচ্ছে সরকারের ইশারায়। নির্বাচন কমিশনকে তাঁরা ‘পোস্ট বক্স’ বলে মনে করছেন। তাঁদের মতে, সরকারের যেখানে যে বদলির প্রয়োজন হচ্ছে কমিশন তাতেই সম্মতি দিচ্ছে। তফসিল ঘোষণার পর প্রশাসন নিরপেক্ষ হয়ে যাবে বলে যে প্রত্যাশা বিএনপিতে তৈরি হয়েছিল তা বাস্তবায়িত হয়নি। দলটির এখনকার উপলব্ধি হলো, ইসি ও প্রশাসনসহ সব কিছু সরকারের ইশারায় চলছে। এমন পরিস্থিতিতে ‘ভোট বিপ্লব’ সম্ভব কি না সে আলোচনা নতুন করে উঠছে দলগুলোর মধ্যে।

২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে অংশ নিয়েও শেষ পর্যন্ত বর্জন করে বিএনপি। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের শরিক জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের পাঁচটি আসন থেকে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জন করে আওয়ামী লীগ, যে ঘটনার সূত্র ধরে পরবর্তী সময়ে এক-এগারোর মতো পরিস্থিতির উদ্ভব হয়।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক এমাজউদ্দীন আহমদ মনে করেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মনোনয়নপত্র বাতিলকে কেন্দ্র করে সেদিন যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল, আজ তার চেয়েও ভয়াবহ ঘটনা ঘটছে। কারণ বিএনপির ৮১ মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। অন্যদিকে গ্রেপ্তার ও ধরপাকড় অব্যাহত আছে। এমন পরিস্থিতিতে বিএনপি ও শরিকদের নির্বাচনে টিকে থাকা কঠিন হবে। তাঁর মতে, নির্বাচন কমিশনের ন্যূনতম কোনো ভূমিকা চোখে পড়ছে না। তারা নির্লিপ্ত। এ অবস্থা চলতে থাকলে বিএনপি কিভাবে নির্বাচন করবে, প্রশ্ন তোলেন বিএনপিপন্থী সুধীসমাজের এই প্রতিনিধি।

গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী অবশ্য মনে করেন, বিএনপিকে টিকে থাকতে হবে। তবে এরপর আরো যদি গ্রেপ্তার বা ধরপাকড় চলে তাতে পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। কারণ জনগণ তখন বেশি করে ভোটে নেমে যাবে। তাঁর মতে, সরকারের এখন যে কৌশল এতে জয়লাভ হবে না।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের মতে, বিএনপি শেষ পর্যন্ত টিকে থাকতে পারবে কি না এটি মিলিয়ন ডলারের প্রশ্ন। কারণ বিএনপির ৮১ জনের প্রার্থিতা বাতিলের মুখে আওয়ামী লীগের একটিও হয়নি। এই প্রবণতা প্রশ্নের উদ্রেক করে। এ প্রসঙ্গে জোট নেতা অলি আহমদের বক্তব্য উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে টিকে না থাকার বিষয়ে তাঁর বক্তব্য অশনিসংকেত। কারণ ওই বক্তব্য আমাদের সেই ২০০৭ সালের ২২ জানুয়ারির বাতিল হওয়া নির্বাচনের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।’ তাঁর মতে, ‘যে দল যখন ম্যানুপুলেট করার সুযোগ পেয়েছে চেষ্টা করেছে। তখন আমরা বিএনপির ওই চেষ্টার বিরুদ্ধে সর্বসম্মতভাবে দাঁড়িয়েছিলাম। অথচ এখন কথাগুলো তাদের বিরুদ্ধে যাওয়ায় আমরা শত্রু হয়ে গিয়েছি’, যোগ করেন সুধীসমাজের এই প্রতিনিধি।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরেও বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, এহছানুল হক মিলন, শাহাদাত হোসেন, সরাফত আলী সফু, সাইফুল ইসলাম পটুসহ সারা দেশে বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মী গ্রেপ্তার হয়েছে। এ বিষয়ে ইসিতে অভিযোগ দিয়েও কোনো ফল পায়নি বিএনপি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপে রাজনৈতিক মামলার তালিকা দিয়েও এ পর্যন্ত কোনো ফলাফল ঘরে তুলতে পারেনি। উল্টো বিএনপির মধ্যে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে, চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশের পর সারা দেশে গ্রেপ্তার অভিযান আরো বাড়তে পারে।

বিএনপির মাঠপর্যায়ের নেতারাও মনে করেন, মনোনয়নপত্র বাতিলের পাশাপাশি ব্যাপক ধরপাকড়ের কারণ হলো কৌশলগত; অর্থাৎ বিএনপিকে চাপে রাখা, যাতে দলটির নেতাকর্মীরা নির্বাচনের দিন ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা নিয়ে মাঠে না নামতে পারে। আর নির্বাচনী এজেন্টদের মধ্যেও যাতে ভীতির সঞ্চার হয়।

রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আসলে ভোটে কিভাবে টিকে থাকব? সরকার চায় না আমরা নির্বাচন করি। বিএনপি নির্বাচনে যাওয়াতেই সরকারের সর্বনাশ হয়ে গেছে। ভয় পেয়ে গেছে। তবে আমি চ্যালেঞ্জ করে বলছি, আধাঘণ্টা পুলিশ নীরব থাকুক, দেখা যাক নির্বাচনে কারা জয়লাভ করে!’

এই সংবাদটি 1,390 বার পড়া হয়েছে

WP Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com