বুধবার, ১০ এপ্রি ২০১৯ ০৩:০৪ ঘণ্টা

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে সৈয়দ মবনুর খোলাচিঠি

Share Button

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে সৈয়দ মবনুর খোলাচিঠি

 

সিলেট ররিপোর্ট: সৈয়দ মবনু একজন সমাজ সচেতন লেখক। সম্প্রতি সিলেটের ‘আবিসিনা ছাত্রাবাসের ভবন’ রক্ষা’র দাবিতে তিনি নিজ ফেসবুক থেকে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে একটি খোলা চিঠি পোষ্ট করেছেন। চিঠিটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো:

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে আমার একটি খোলাচিঠি
বিষয় : সিলেটের ‘আবিসিনা ছাত্রাবাসের ভবন’ রক্ষা
——————————————————————

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ

আমি বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের একজন আদর্শ নাগরিক। আমি আপনার দল নয়, কোন দলই করি না। আবার আমাদের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বের বিশ্বাসী কোন দলকে ঘৃণাও করি না। যারা এই রাষ্ট্রের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে কাজ করে আমি তাদের সবাইকে সমর্থন করি। এখানেই হয়েছে বিপত্তি। আমার অবস্থা ‘না ঘর কা-না ঘাট কা’। দালাল আমি কখনও আপনার, আবার কখনও আপনার বিরোধীদের। করার কিছু নেই। সাহিত্যের ভাষায় বললে বলতে পারি, ‘আমি সুন্দরের পূঁজারী / যেখানে সুন্দন সেখানে দেই অঞ্জলি / পক্ষে হলে বাহ বাহ / নতুবা হয়ে যায় দালালি।’
অবশ্য আওয়ামীলীগের সাথে আমাদের পারিবারিক গভীর সম্পর্ক রয়েছে সেই ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দ থেকে। মুক্তিযুদ্ধের সময় আমাদের পরিবারের দেশ-বিদেশের ভূমিকা আপনারও কিছুটা জানা থাকার কথা। আমাদের পরিবারের কেউ কেউ বিভিন্ন দলে বিভক্ত হলেও মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে সবাই আওয়ামীলীগ আর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষে। আপনি হয়তো জানেন, হয়তো জানেন না, বঙ্গবন্ধুকে পাকিস্তানের জেল থেকে মুক্ত করতে যারা লন্ডনে বিচারপতি আবু সাঈদ চৌধুরীর নেতৃত্বে আন্দোলন সংগ্রাম এবং অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছেন তাদের মধ্যে আমাদের পরিবারও অন্যতম। তবে স্বাধীনতার পর আমাদের পরিবারের কেউ একটি সূতার জন্যও মুক্তিযুদ্ধের অবদানকে ব্যবহার করেছেন বলে আমার জানা নেই। আমার চাচা সৈয়দ আব্দুল হান্নানকে বেশ ক’বার মন্ত্রীত্বের অফারও দেওয়া হয়েছে জিয়া এবং এরশাদের সময়ে, কিন্তু তিনি তবু আদর্শচ্যূত হননি। তিনি কিংবা আমাদের পরিবারের কেউ কখনও মুক্তিযুদ্ধের চেনতা বিষয়ে কারো সাথে আপোষ করেন নি।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
এসব বলার উদ্দেশ্য এ নয় যে, আমরা এখন আপনার কাছে ব্যক্তিগত কিছু আশা করছি। মোটেও না। আমরা মনে করি দেশ আমাদের, আমরা দেশের। নিজের বাড়িতে নিজে কাজ করতে হয় প্রতিদানের প্রত্যাশা ছাড়া। আমার আজকের বিষয় হলো সিলেটের ‘আবিসিনা ছাত্রাবাসের ভবন’ রক্ষা। আপনার প্রশ্ন জাগতে পারে, কেন এই জীর্ণ ভবনকে রক্ষা করতে হবে? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, কারণ এখানে অনেকগুলো।
আমরা প্রথম কারণ বলছি, এই বিল্ডিং ১৮৫০ খ্রিস্টাব্দে প্রতিষ্ঠিত হওয়ায় ২০১৯ খ্রিস্টাব্দে এসে প্রত্নতাত্ত্বিক সম্পদ হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করে নিয়েছে। আমাদের সিলেটে প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন খুব একটা নেই। এখানের বিশ্ববিদ্যালগুলোর প্রত্নতাত্ত্বিক বিভাগগুলো গবেষণার ক্ষেত্রে অনেকটা অকেজু হয়ে যাবে যদি এভাবে ভাঙতে শুরু হয়। তা ছাড়া প্রত্নতত্ত্বে সমৃদ্ধ অঞ্চলে প্রচুর বিদেশী গবেষক এবং পর্যটকরাও এসে থাকেন। ফলে রাষ্ট্রের সুনামের সাথে অর্থনৈতিক উপকারও হয়। তা ছাড়া সিলেট হলো প্রবাসী অধ্যুষিত এলাকা। এখানে প্রতিবছর অসংখ্য পরিবার আসে বিভিন্ন দেশ থেকে। প্রবাসী ছেলে-মেয়েরা দেশে এসে যখন দেখার কিছু পায় না তখন পরবর্তিতে আসতে চায় না। তখন তারা মিশর, মরক্কো, গ্রীস, ভারত কিংবা পাকিস্তান ভ্রমণ করতে আগ্রহী হয়ে যায়। ফলে একদিকে আমাদের সন্তানেরা দেশবিমূখ হচ্ছে, অন্যদিকে অর্থনৈতিক অনেক ক্ষতি হচ্ছে।

দ্বিতীয় কারণ : ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দের ৯ এপ্রিল দায়িত্ব পালনকালে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে শল্য বিভাগের প্রফেসর ডা. শামসুদ্দীন আহমদ, ডা. শ্যামল কান্তি লালা, নার্স মাহমুদুর রহমান, পিয়ন মো. মুহিবুর রহমান ও মোখলছেুর রহমান, অ্যাম্বুলেন্স ড্রাইভার কোরবান আলী সহ মোট ন’জন নির্মমভাবে শহীদ হয়েছিলেন। এই ভবন আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতির সাথে সম্পর্কিত। তাই মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী সংগঠন আওয়ামীলীগ এবং মুক্তিযুদ্ধের প্রধান প্রেরণা বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা ক্ষমতায় থাকতে এই ভবন যদি ভেঙে ফেলা হয় তবে তা ইতিহাসে একটা উদাহরণ হয়ে যাবে মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহ্যগুলো ধ্বংসের। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী কোন সরকার এসে যখন উন্নয়নের নামে, হাসপাতালের নামে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি মুছতে শুরু করবে তখন এই ভবন ভাঙার ঘটনাটি উপমা হয়ে যাবে, যেমন আজ কেউ কেউ সিলেট সার্কেট হাউসের উপমা দিয়ে থাকেন।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
আমরা আমাদের এই বেদনাটুকু আমাদের সিলেটবাসীর অভিভাবক সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতকে অবগত করেছি, তিনি আমাদেরকে আশ্বাস দিয়েছিলেন তা রক্ষার চেষ্টা করবেন। কিন্তু আমরা ভরসা পাচ্ছি না যেহেতু তিনি এখন মন্ত্রী নয়। তাই আমরা অবগত করি বর্তমান সরকারের মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে মোমেন সাহেবকেও। কিন্তু তিনি যে বক্তব্য দিলেন তাতে মনে হচ্ছে না কোন কাজ হবে। তাঁর যুক্তি হলো বাজেট চলে যাবে। আমরা মনে করি, যেহেতু বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক বাজেট প্রদান করা হয়েছে তাই সরকার চাইলে বাজেট রক্ষা করতে পারবে। রাষ্ট্রের স্বার্থে আমরা চাচ্ছি ভবনটি রক্ষা করে এই বাজেট দিয়ে অন্য কোথাও হাসপাতাল তৈরি করে দেওয়া হোক।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
আমি জানি না কীভাবে কোথায় গিয়ে আপনার কাছে এসব দাবী জানাতে হয়। আমি এসব লাইন-ঘাটও বুঝি না। তাই ফেসবুক ওয়ালকে আমার মনের কাকুতি জানানোর মাধ্যম হিসাবে গ্রহণ করলাম। জানি না, এভাবে প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে পত্র লেখা আইনের দৃষ্টিতে বৈধ-না অবৈধ? তবু মনের বেদনায় লিখে দিলাম। বিশ্বাস করুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মনে হচ্ছে কেউ আমার শরীরের কোন একটা অঙ্গ নষ্ট করে দিচ্ছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
বৃহত্তর সিলেট নিয়ে ভাবলে কম হলেও চারটা বড় রকমের হাসপাতাল প্রয়োজন। সিলেটে সরকারী অনেক খাস জায়গা রয়েছে, রয়েছে সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগেরও কিছু জায়গা শাহী ঈদগাহে। সিলেট রেডিও-এ প্রচুর জায়গা রয়েছে খাদিম নগরের দিকে। মাননীয় প্রধানন্ত্রী যদি এই সব জায়গায় হাসপাতাল করা হয় তবে একদিকে প্রাচীনত্ব এবং মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহ্য রক্ষা পায়, অন্যদিকে সিলেটের প্রধান সড়ক যানজটমুক্ত থাকে। আপনি সিলেটের ট্রাফিক বিভাগকে জিজ্ঞাস করুন, এই রাস্তায় একটি সকরারী বড় হাসপাতাল, অসংখ্য প্রাইভেট ক্লিনিক, ডাক্তারখানা, সিলেটের প্রধান স্টেডিয়াম, আলিয়া মাদরাসা, মদনমোহন কলেজ এবং প্রধান বি আই পি রোড ইত্যাদি থাকায় কত যানজট?

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
আমরা সিলেটবাসী অভিভাবকশূন্য মনে হচ্ছে। আমাদের আল্লাহ ছাড়া কারো কাছে যাওয়ার জায়গা নেই। আমি জানি না কার কাছে গেলে আপনি পর্যন্ত আমাদের এই দাবীটুকু পৌঁছতে পারে? জানি না আপনার কাছে আমাদের এই দাবীর মূল্য কতটুকু? তবু জানিয়ে গেলাম-দয়া করে এই ভবনকে রক্ষা করুন ইতিহাস-ঐতিহ্যের স্বার্থে।

বিনীত
সৈয়দ মবনু
(একজন সাধারণ লেখক)
সিলেট
বাংলাদেশ।

এই সংবাদটি 1,087 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com