শুক্রবার, ১২ এপ্রি ২০১৯ ১১:০৪ ঘণ্টা

দিল্লির মসনদ দখলে ইভিএম বিভ্রাট, দু’জনের মৃত্যু

Share Button

দিল্লির মসনদ দখলে ইভিএম বিভ্রাট, দু’জনের মৃত্যু

সিলেট রিপোর্ট: দিল্লির মসনদ দখলের ভোটে বৃহস্পতিবার প্রথম দফায় ভারতের ১৪ কোটি মানুষ তাদের রায় দিয়েছেন। এ দিনের ভোটে নির্ধারিত
হয়েছে অনেক রথি মহারথির ভাগ্য। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে কংগ্রেস রাহুল গান্ধীকে তুলে ধরার পরে এই প্রথম সাধারণ নির্বাচনের মুখোমুখি ভারত এবং সেই প্রশ্নকে সামনে রেখে দেশজুড়ে ভোটগ্রহণ এই প্রথম বার। দিনের শেষে সারা দেশে ভোট পড়েছে ৭৭ শতাংশ। সবচেয়ে বেশি ভোট পড়েছে পশ্চিমবঙ্গে, সেখানে ৮০ শতাংশের বেশি মানুষ ভোট দিয়েছেন। প্রথম দফার নির্বাচনে ২০টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ৯১টি লোকসভা কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ মোটামুটি  নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হলেও সকাল থেকেই ইভিএম বিভ্রাটের ঘটনা ঘটেছে বহু জায়গাতেই।

এদিনের নির্বাচনে রাজনৈতিক সংঘর্ষে ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে বলা হয়েছে, ইভিএম বিভ্রাটের ফলে অনেক জায়গাতেই ভোট দেরিতে শুরু হয়েছে কিম্বা কিছু সময়ের জন্য ভোটগ্রহণ ব্যাহত হয়েছে।

পশ্চিমবঙ্গের উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী রবীন্দ্র নাথ ঘোষ এত বেশি সংখ্যক ইভিএম বিভ্রাটের পেছনে ষড়যন্ত্র রয়েছে বলে দাবি করেছেন। বিভিন্ন রাজ্যের বহু বুথে পুনঃনির্বাচনের দাবিও জানানো হযেছে।

অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুর জেলার গুন্টাকল বিধানসভা কেন্দ্রের জন সেনা পার্টির প্রার্থী মধুসূদন গুপ্তা একটি বুথে বচসার জেরে ইভিএমকে আছড়ে ফেলে ভেঙ্গে দিয়েছেন। পরে অবশ্য তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ইভিএম বিভ্রাট ছাড়াও অনেক জায়গাতেই দলীয় সংঘর্ষ ও গুলি চালনার মতো ঘটনাও ঘটেছে। অন্ধ্রপ্রদেশের তাড়িপাত্রী কেন্দ্রে ওয়াইএসআর কংগ্রেস এবং তেলুগু দেশম পার্টির সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে দুই দলের এক জন করে সমর্থকের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। পশ্চিম উত্তর প্রদেশের কৈরানায় ভুয়া ভোটারদের ছত্রভঙ্গ করতে গুলি চালাতে হয়েছে বিএসএফ-কে।

সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ২০-২৫ জন ভুয়া ভোটার ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু তাদের কারো কাছে  কোনো পরিচয়পত্র ছিল না। তারা আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠায় এই ভুয়া ভোটারদের ছত্রভঙ্গ করতে গুলি চালিয়েছে ঘটনাস্থলে উপস্থিত বিএসএফ জওয়ানরা। কিছু ক্ষণের মধ্যেই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পর ফের ভোটগ্রহণ হয়েছে। উত্তরপ্রদেশের মুজফফর নগরে বিজেপি প্রার্থী সঞ্জীব বালিয়ান অভিযোগ করেছেন বোরখায় ঢেকে মহিলা  ভোটাররা ছাপ্পা ভোট দিচ্ছেন। বেশ কিছু জায়গায় আইইডি বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ভোট বানচালের চেষ্টা করেছে মাওবাদীরা। মহারাষ্ট্রের গড়চিরৌলিতে জেলার একটি ভোট কেন্দ্রের সামনে আইডি বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে মাওবাদীরা। ছত্তীশগড়ের বস্তারেও এদিন সকালে মাওবাদী ও জওয়ানদের  মধ্যে গুলির লড়াই হয়েছে। নারায়ণপুরের ফরাসগাঁওতে আইটিবিপি জওয়ানদের একটি কনভয় ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের দিকে যাওয়ার সময় হামলা চালায় মাওবাদীরা।

এদিন  সকালের অনেক আগে থেকেই মানুষ এই ভোট উৎসবে যোগ দিতে কেন্দ্রে লাইনে দাঁড়িয়েছেন। ভোটারদের মধ্যে নারীদের উপস্থিতি ছিল বেশ ভালো। সিকিমের একটি বুথে এক শ’ সাত বছরের সবচেয়ে বয়স্ক নারী সুমিত্রা রাই নিজে ভোট দিয়েছেন। তবে এদিন সকাল ৭টায় নির্বাচন শুরু হয়ে সন্ধ্যা ৬টায় শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বহু বুথে ভোটারদের লাইন থাকা ভোটগ্রহণ চলেছে রাত পর্যন্ত। এদিন অবশ্য বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতারা ভোটারদের কাছে এগিয়ে এসে ভোট দেবার আবেদন জানিয়েছেন। ভারতে ১৭তম লোকসভা নির্বাচন হচ্ছে সাত দফায়। ১১ই এপ্রিল থেকে  শুরু হয়ে এই ভোট পর্ব চলবে ১৯শে মে পর্যন্ত। কোন দল বা জোট দিল্লির মসনদে বসবে তার রায় ঘোষণা হবে ২৩শে মে। এবারের নির্বাচনে মোদির ফিরে আসা নাকি নতুনভাবে কংগ্রেসকে বরণ করে নেয়া হবে তারই ভাগ্য নির্ধারণের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

গত ২০১৪ সালের নির্বাচনে প্রথম দফায় নেয়া  ৯১টি কেন্দ্রের মধ্যে বিজেপি জিতেছিল ৩২টি আসন, কংগ্রেস পেয়েছিল ৭টি আসন, তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতি ১১টি আসন, তেলেগু দেশম পার্টি ১৬টি আসন, তৃণমূল কংগেস্র ২টি আসন, বিজু জনতা দল ৪টি আসন, শিবসেনা ২টি আসন এবং অন্যরা পেয়েছিল ১৭টি আসন। এদিনের নির্বাচনে যেসব রথি মহারথির ভাগ্য নির্ধারণ হয়েছে তাদের মধ্যে ছিলেন, বিজেপির মন্ত্রী নীতিন গড়গড়ি, মন্ত্রী ভি কে সিং, মন্ত্রী কিরেণ রিজিজু, এআইএমআইএমের আসাউদ্দিন ওয়াইসি, কংগ্রেসের হরিশ রাওয়াত, গৌরব গগৈ ও মুকুল সাংমা, এলজেপির চিরাগ পাসোয়ান এবং বিরোধী মহাজোটের প্রার্থী জিতনরাম মাঝি। সংশোধিত হিসাব অনুযায়ী এদিনের নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন ১২৭৯ জন প্রার্থী। এই প্রার্থীদের মধ্যে ছিলেন ৮৯ জন নারী। আর ৪০১ জন প্রার্থীই কোটিপতি। সবচেয়ে দরিদ্র প্রার্থী জনতা দলের নাল্লা প্রেম কুমার। তিনি মাত্র ৫০০ রুপির মালিক। নাল্লা যে কেন্দ্রে লড়েছেন সেই কেন্দ্রেরই কংগ্রেস প্রার্থী কোন্ডা বিশ্বেশ্বর রেড্ডির সম্পদের পরিমাণ ৮৯৫ কোটি রুপি। তিনিই ছিলেন এই দফার প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে ধনী প্রার্থী। এদিনের প্রার্থীদের মধ্যে ২১৩ জনের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রয়েছে। এর মধ্যে আবার ১৪৬ জনের বিরুদ্ধে রয়েছে একাধিক মামলা।

প্রথম দফায় যেসব রাজ্যে ভোট হয়েছে তার মধ্যে অন্ধ্রপ্রদেশ (২৫), অরুণাচল প্রদেশ (২),  মেঘালয় (২), উত্তরাখণ্ড (৫), মিজোরাম (১), নাগল্যান্ড (১), সিকিম (১),  লাক্ষাদ্বীপ (১),   তেলেঙ্গানা (১৭) ও আন্দামান নিকোবরের (১) সবক’টি আসনে ভোট নেয়া হয়েছে। আর আসাম (৫), বিহার (৪), ছত্তিশগড় (১), জম্মু ও কাশ্মীর (২), মহারাষ্ট্র (৭), মণিপুর (১), ওড়িশা (৪), ত্রিপুরা (১), উত্তরপ্রদেশ (৮) এবং পশ্চিমবঙ্গের (২) কিছু আসনে প্রথম দফায় ভোট হয়েছে। একই সঙ্গে অন্ধ্রপ্রদেশ, অরুণাচল প্রদেশ ও সিকিম বিধানসভার সবক’টি আসনে এবং ওড়িশা বিধানসভার কিছু আসনে এদিন নির্বাচন হয়েছে।

এই সংবাদটি 1,041 বার পড়া হয়েছে

WP2FB Auto Publish Powered By : XYZScripts.com