স্বাধীনতার মাসে বঙ্গবন্ধু ও জমিয়ত প্রসঙ্গে কিছু কথা

প্রকাশিত: ১০:৩৪ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ৪, ২০২১

স্বাধীনতার মাসে বঙ্গবন্ধু ও জমিয়ত প্রসঙ্গে কিছু কথা

মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী:

মার্চ স্বাধীনতার মাস। ১৯৭১ সালের ১৫ মার্চ। পাকিস্তান জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের তৎকালীন জেনারেল সেক্রেটারি মুফতি মাহমুদ রহ. (মুফতি ফজলুর রহমান সাহেবের বাবা, সীমান্ত প্রদেশের সাবেক মূখ্যমন্ত্রী) পশ্চিম পাকিস্তান জমিয়তের কয়েকজন এমপিকে সঙ্গে নিয়ে ঢাকায় পৌঁছেন। বিকেল পাঁচটায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ধানমণ্ডিস্থ বাসার উদ্দেশে রওনা দেন।
সঙ্গে ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের নেতৃবৃন্দের মধ্য থেকে আল্লামা শামসুদ্দীন কাসেমী রহ., আল্লামা মুহিউদ্দিন খান রহ., আল্লামা আশরাফ আলী রহ. ও মাওলানা মশিউর রহমান সাদী রহ.। ধানমন্ডি রোড তখন আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীতে লোকারণ্য।
মুফতি সাহেবের গাড়ি ভিড় ঠেলে বঙ্গবন্ধুর বাসায় পৌঁছুলে স্বয়ং বঙ্গবন্ধু ও অন্যান্য জাতীয় নেতৃবৃন্দ মুফতি সাহেবকে অভ্যর্থনা জানিয়ে বুক মিলিয়ে আলিঙ্গন করেন।
বারান্দায় উঠে মুফতি সাহেব বললেন, “শেখ সাহেব, আপনার সঙ্গে আমার একান্ত ব্যক্তিগত আলোচনা আছে।”
সাথে সাথে বঙ্গবন্ধু মুফতি সাহেবকে নিয়ে বাসার ভেতরে প্রবেশ করেন। অন্যরা বারান্দার চেয়ারে বসলেন। মরহুম তাজ‌উদ্দিন সাহেব ও নজরুল ইসলাম সাহেব আলেম নেতৃবৃন্দের সাথে বাইরে বসে রইলেন। ৪৫ মিনিট রুদ্ধদ্বার বৈঠকের পর বঙ্গবন্ধু মুফতি সাহেবকে হাসিমুখে বিদায় দিলেন। এপ্রসঙ্গে লেখক আব্দুল্লাহ আল ফারুক নলেন, দুঃখ লাগে, যারা তখন বঙ্গবন্ধুর ঘোরতর বিরোধী ছিল, চিন-রাশিয়ার অর্থায়নে এ দেশে কমিউনিস্ট বিপ্লবের খোয়াব দেখত, যাদের সন্ত্রাসের ক্ষত এখনো বাংলাদেশের জনগণ ভুলেনি।
আজ তারাই বর্তমান আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করে, উগ্র রাম-বাম সাম্প্রদায়িক শক্তির এজেন্ট হয়ে দেশে সংঘাতের পরিবেশ কায়েম করতে চাইছে। ইনু-মেনন-শাহরিয়ারদের এই অশুভ জোটের বিরুদ্ধে সচেতন হওয়া সকল দেশপ্রেমিক ও ইসলামপন্থীর অনিবার্য দায়িত্ব।
১৯৬৯ সালের ৪ঠা জানুয়ারী দেশব্যাপী আয়ুব শাহীর বিরুদ্ধে জোরদার আন্দোলন চলছে, যার দরুন আয়ূব শাহীর টনক নড়ল। মসনদে বসে নিজের খেয়াল খুশীমত রাষ্ট্র পরিচালনা সম্ভব নয় দেখে বাধ্য হয়ে গোল টেবিল কনফারেন্স আহবান করত: সকল রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে একটি সমঝোতায় পৌছতে চাইলেই জমিয়ত নেতা মুফতী মাহমূদ সাহেব নির্দিষ্ট তারিখে পূর্ব পাকিস্তানের প্রধান রাজনৈতিক দলের নেতা শেখ মুজিবুর রহমানকে অনুপস্থিত দেখে কনফারেন্সে বসতে অসম্মতি প্রকাশ করে বললেন, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের বৈঠকে কোন একজন নেতাকে অনুপস্থিত রেখে বৈঠকে বসা মোটেই সমীচীন নয়। এতে গোল টেবিল বৈঠক ব্যর্থ হবে। আমি কখনও এ জাতীয় কনফারেন্সে যোগ দিব না।’
জমিয়ত নেতা মুফতি সাহেবের এই ন্যায়সঙ্গত দাবীর চাপে ঐ দিনের কনফারেন্স মূলতবী হল। তখন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আগর তলার কেইসে জেল হাজতে ছিলেন। আয়ূব খান অনন্যোপায় হয়ে শেখ মুজিবুর রহমানকে তার সঙ্গী-সাথীসহ মুক্তি দিলেন। অতঃপর গোলটেবিল কনফারেন্স বসল।
এ সম্পর্কে মাওলানা আশরাফ আলী বিশ্বনাথী লিখেছেন, ১৫ই মার্চ জমিয়ত নেতৃবৃন্দ ঢাকায় পৌঁছে ইন্টার কন্টিনেন্টাল হোটেলে অবস্থান করলেন। জমিয়ত নেতা মুফতী মাহমুদ সাহেব সোজা পীর মুহসীন উদ্দিন সাহেব (দুদু মিয়া), আমীর পূর্ব পাকিস্তান জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের বাসায় আসলেন। বিকাল ৫ ঘটিকায় শেখ মুজিবুর রহমানের ধানমন্ডিস্থ বাসায় রওয়ানা দেন। মাওলানা শামসুদ্দীন কাসেমী, (মাসিক মদীনা সম্পাদক) মাওলানা মুহিউদ্দীন খান, মাওলানা মুছিহুর রহমান ছাদী ও আমি (আশরাফ আলী) সাথে ছিলাম। ধানমন্ডি রোডে আওয়ামীলীগ ও ছাত্রলীগের লোকে লোকারণ্য ছিল, মুফতী সাহেবের গাড়ী ভীর ঠেলে শেখ সাহেবের বাসায় পৌঁছল। শেখ মুজিবুর রহমান অন্যান্য নেতৃবৃন্দসহ মুফতী সাহেবকে অভ্যর্থনা করে স্বাগত জানিয়ে আলিঙ্গন করলেন। গৃহের বারান্দায় উঠে মুফতী সাহেব বললেন ‘শেখ সাহেব প্রাইভেট বসার প্রয়োজন’ সাথে সাথেই শেখ সাহেব মুফতী সাহেবকে নিয়ে গৃহের ভিতরে প্রবেশ করলেন, আমরা সকল বারান্দায় চেয়ারে বসলাম।’
এ ব্যাপারে বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা আলেম, বুযুর্গ ব্যক্তিত্ব খলিফায়ে মাদানী চট্টগ্রামের মাওলানা নোমান জানুয়ারী ২০১১ সালে সিলেট দক্ষিণকাছ মাদরাসায় লেখকের সাথে আলাপচারিআয় বলেছেন, ইসলামী বিধানানুযায়ী পাকিস্তানের সংবিধান তৈরীর জন্য মুফতী মাহমুদ (র) শেখ মুজিবুর রহমান সাহেবের সাথে আলোচনা করেন। তখন শেখ সাহেব বলেছিলেন, মুফতি সাহেব! এই প্রস্তাবটি আরো কয়েকদিন আগে দিলেননা কেনো? এখনতো আমি নির্বাচনী ইশতেহার জনগনের হাতে দিয়েদিছি। এই মুহুর্তে আমার করার কিছু নেই। তবে আপনি যখন পার্লামেন্টে ইসলামী শাসনতন্ত্র উত্থাপন করবেন, তখন আমি বিরোধিতা করবো না বরং চুপ থাকবো।’
স্বাধীন বাংলায় জমিয়ত :
স্বাধীন বাংলাদেশে সর্বপ্রথম ১৯৭৪ সালের জানুয়ারি মাসে ঢাকা যাত্রাবাড়ী দারুল উলূম মাদানিয়ায় অনুষ্ঠিত এক উলামা সম্মেলনে মাওলানা শায়খ তাজাম্মুল আলী জালালাবাদীকে সভাপতি ও মুফতী শাহ আহরারুজ্জামান হবিগঞ্জীকে সাধারণ সম্পাদক করে জমিয়তে উলামা বাংলাদেশ গঠন করা হয়। অতঃপর ২৯ অক্টোবর ১৯৭৪ সালে যাত্রাবাড়ী দারুল উলূম মাদানিয়ায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে মাওলানা আব্দুল করীম শায়খে কৌড়িয়াকে সভাপতি ও মাওলানা শামছুদ্দীন কাসেমীকে সাধারণ সম্পাদক করে ১৫ সদস্য বিশিষ্ট জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মজলিসে আমেলা গঠন করা হয়। ২৫ ও ২৬ ডিসেম্বর ১৯৭৬ সালে পাটুয়াটুলি জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে শায়খুল হাদীস মাওলানা আজিজুল হককে সভাপতি ও মাওলানা মুহিউদ্দীন খানকে সাধারণ সম্পাদক করে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ পুনর্গঠন করা হয়। উক্ত সম্মেলনে বাংলাদেশের কওমী মাদরাসা সমূহকে একটি বোর্ডের আওতায় আনার জন্য মাওলানা রিজাউল করীম ইসলামাবাদীকে আহবায়ক করে একটি সাব কমিটি গঠন করা হয়। মাওলানা ইসলামাবাদী ১৯৭৮ সালে শায়েস্তা খান হলে কওমী মাদরাসা সমূহের এক সম্মেলন আহবান করেন। উক্ত সম্মেলনে ‘বেফাকুল মাদারিসিল কওমিয়্যাহ আল-আরাবিয়্যাহ বাংলাদেশ’ নামে বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা বোর্ড গঠিত হয়।

জমিয়তের নিবন্ধন :
২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ র্নিবাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচনে ৩৯ টি রাজনৈতিক দল অংশগ্রহণ করে। তন্মধ্যে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের ৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেন। নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পুর্বে প্রত্যেক রাজনৈতিক দল গুলোকে নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নিবন্ধিত হতে হয়েছে। রাজনৈতিক দল হিসেবে জমিয়তের নিবন্ধন সংক্রান্ত শুনানী ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর বেলা ১২ টায় রাজধানীর নির্বাচন কমিশন কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। শুনানিতে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন, দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী, নির্বাহী সভাপতি মাওলানা মুহিঊদ্দীন খান, সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা নূর হোছাইন কাসেমী, মহাসচিব মুফতি মো. ওয়াক্কাস, যুগ্ম মহাসচিব শেখ মুজিবুর রহমান, সাবেক সংসদ সদস্য এডভোকেট মাওলানা শাহীনূর পাশা চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ঊবায়দুল্লাহ ফারুক, জমিয়ত নেতা মাওলানা শুয়াইব আহমদ, আলহাজ্ব মোস্তফা মঈন উদ্দীন খান, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা আব্দুল মালিক চৌধুরী, মুহাম্মদ রুহুল আমীন নগরী সহ বিপুল সংখ্যক নেতা কর্মী।
বিজ্ঞ নির্বাচন কমিশন রাজনৈতিক দল হিসেবে প্রয়োজনীয় শর্তাদি পুরণ করায় ২৩ নভেম্বর ২০০৮ সালে মাওলানা আব্দুল মোমিন শায়খে ইমামবাড়ী, নির্বাহী সভাপতি মাওলানা মুহিঊদ্দীন খান ও মহাসচি মুফতি মো: ওয়াক্কাস এর নেতৃত্বাধীন ‘জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ’-কে নিবন্ধন সার্টিফিকেট দেয়। বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন কর্তৃক জমিয়তের দলীয় প্রতীক ‘খেজুরগাছ’ এবং নিবন্ধন নং হল-০২৩।

এই সংবাদটি 139 বার পঠিত হয়েছে

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com